অনলাইন শপিং,ফ্রিল্যান্সিং ও অন্যান্য কাজ করার জন্য এই ওয়েবসাইটে একটি একাউন্ট থাকতে হবে। একাউন্ট খোলা মানেই টাকা দিতে হবে এমন না। ফ্রিল্যান্সার অথবা বায়ার, এর যে কোন একটি চয়েজ করে একাউন্ট তৈরি করতে হবে।অথবা শপিং সেকশনের যে কোন প্রোডাক্টের এ্যাড টু কার্ট বাটনে ক্লিক করেও আপনি একাউন্ট তৈরি করতে পারবেন।সাইনআপ করুন এবং কাজ পোষ্ট করুন। ফ্রিল্যান্সারগণ কাজ খুজুন ও বিড করুন।একাউন্ট তৈরি হলে আপনি আপনার দেয়া ইউজার আইডি ও পাসওর্য়াড ব্যবহার করে সাইটে লগইন করতে পারবেন। You must have an account on this website for online shopping, freelancing and other activities. Opening an account does not mean that you have to pay. Freelancer or buyer, you have to create an account by choosing one of them. Or you can create an account by clicking on the add to cart button of any product in the shopping section.Sign up and post work. Freelancers find work and bid. Once the account is created, you can login to the site using your given user ID and password.

We have 53 guests and no members online

All Posts

3417 posts found

Deshi Group
15 September 2021, 17:54

১০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়া শিক্ষিকা আটক

১০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়া শিক্ষিকা আটক


হালাল উপার্জনের প্রলোভন দেখিয়ে সাধারণ মানুষদের কাছ থেকে প্রায় ১০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে পাবনার স্থানীয় এক স্কুল শিক্ষিকার বিরুদ্ধে।

এ ঘটনায় প্রতারণার শিকার হওয়া ভুক্তভোগীরা ওই শিক্ষীকার বাড়ি অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে থাকেন।

পরবর্তীতে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হলে স্থানীয় থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই নারী প্রতারককে আটক করে। প্রতারণার শিকার ভুক্তভোগীরা জানান, পাবনা পৌর এলাকার পুলিশ লাইনস স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রাথমিক শাখার শিক্ষিকা মোছা. সীমা আক্তার (৪০)। তিনি পৌর এলাকার আটুয়া হাউজপাড়া মহল্লার মৃত হানিফুল ইসলামের স্ত্রী। এই শিক্ষিকা সাধারণ মানুষদের ইসলামী শরিয়াহ মোতাবেক গরুর খামার ও আরো নানা ধরনের হালাল উপার্জনের কথা বলে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।

তিনি শুধু সাধারণ মানুষই নয় বোকা বানিয়েছেন নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের একাধিক শিক্ষক এবং পুলিশ সদস্যদেরও। মানুষ তার কথায় বিশ্বাস করে লাভের আশায় তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অর্থ বিনিয়োগ করেছে। লাভের অংক বেশি হওয়ায় লোভে পরে অনেকেই সেখানে অর্থ বিনিয়োগ করতে আগ্রহী হয়। প্রথম পর্যায়ে বিনিয়োগকারীদের আকৃস্ট করতে তাদের লাভের টাকা দিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু পরবর্তীতে টাকার অংক বেড়ে গেলে তিনি সমস্ত টাকা আত্মসাৎ করে গেল এক মাস গা ঢাকা দেন।

এদিকে মাসিক লাভের টাকা নিতে এসে ওই নারী ব্যবসায়ীকে না পেয়ে তখন সবাই বুঝতে পারেন তারা প্রতারণার শিকার হয়েছেন। ওই প্রতারকের কাছে টাকা দিয়ে অনেকেই এখন সর্বশান্ত হয়ে পড়েছেন বলে জানান।

এ ঘটনার পরে স্কুল কর্তৃপক্ষ ওই নারী প্রতারককে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। ঘটনার পরে ভুক্তভোগীরা পাবনা সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করছেন। এই প্রতারক নারী শিক্ষিকা অনেকের কাছ থেকে চেক ও স্ট্যাম্পের মাধ্যমেও টাকা নিয়েছেন।

তবে ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই প্রতারক নারী ব্যবসায়ীর বৈধ কোনো কাগজ পত্র পাওয়া যায়নি। তিনি স্বীকার করেছেন মানুষের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার বিষয়টি। তিনি একজনের কাছ থেকে টাকা নিয়ে আরেকজনকে দিয়েছেন বলে স্বীকার করেন। এ ঘটনায় প্রতারণার শিকার হওয়া সাধারণ মানুষ তাদের টাকা ফিরে পাবার জন্য প্রশাসনের সহযোগিতা প্রত্যাশা করেছেন।

অভিযোগের বিষয়ে প্রতারক মোছা. সীমা আক্তার বলেন, আমার কোনো বৈধ ব্যবসা নাই। একজনের কাছ থেকে টাকা নিয়ে আরেকজনকে দিয়েছি। যারা টাকা দিয়েছে তাদের সুদে অনেক টাকা লাভ দিয়েছি। অমি কারো টাকা আত্মসাৎ করি নাই। মানুষ না জেনে না বুঝে আমাকে টাকা কেন দিয়েছে। তাদের প্রশ্ন করুন। সম্প্রতি যারা আমাকে টাকা দিয়েছে তাদের টাকার একটি হিসাব করেছি। সেখানে প্রায় তিন কোটি টাকার মত হবে। সেই সব টাকা আমি দিয়ে দেব। আর যারা লাভের টাকা নিয়েছে তাদের দেব না। আর আমাকে কেন স্কুল থেকে বরখাস্ত করেছে সেটি স্কুল কর্তৃপক্ষ জানে। আমি ব্যক্তিগত কাজে বাইরে ছিলাম। জেলা পুলিশ আমাকে আসতে বলেছে আমি এসেছি।

অভিযোগের বিষয়ে জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার স্নিগ্ধ আখতার বলেন, এ ঘটনার বিষয়ে আমরা অবগত হয়েছি। তার বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগের কারণে তাকে স্কুল থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। তার প্রতারণার বিষয়ে আমাদের কাছে লিখিত অভিযোগ নিয়ে এসেছিলো ভুক্তভোগীরা। আমরা তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছি।

অনেকেই তার বিরুদ্ধে তথ্য প্রমাণ নিয়ে এসেছেন। ভুক্তভোগীরা তার বাড়িতে তাকে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত অবরুদ্ধ করে রেখেছিলো। সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। তদন্ত শেষে তার বিরুদ্ধে অভিযোগের আলোকে মামলা দায়ের করা হবে।
0 Share Comment
National/International News Group
14 September 2021, 19:57

রমিজ রাজা পিসিবির নতুন চেয়ারম্যান

রমিজ রাজা পিসিবির নতুন চেয়ারম্যান
পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) নতুন চেয়ারম্যান হয়েছেন দেশটির সাবেক অধিনায়ক রমিজ রাজা। সোমবার লাহোরে ন্যাশনাল হাই পারফরম্যান্স সেন্টারে বোর্ড অব গভর্নরদের বিশেষ সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

পিসিবির নির্বাচন কমিশনার অবসরপ্রাপ্ত বিচারক শেখ আজমত সাঈদ এ নির্বাচন ও সভা পরিচালনা করেন। যেখানে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় তিন বছরের জন্য চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন বিশ্বকাপজয়ী দলের সদস্য রমিজ রাজা।

এর আগে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের কার্যালয় থেকে রমিজকে পিসিবির বোর্ড অব গভর্নর হিসেবে মনোনীত করা হয়। এর পরবর্তী ধাপই বোর্ডের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পাওয়া। সেই প্রক্রিয়া অনুসরণ করেই চেয়ারম্যান হলেন রমিজ রাজা।
0 Share Comment
National/International News Group
14 September 2021, 19:56

নিজেদের ঐতিহ্যবাহী পোশাকে উজ্জ্বল থাকতে চায় আফগান নারীরা

নিজেদের ঐতিহ্যবাহী পোশাকে উজ্জ্বল থাকতে চায় আফগান নারীরা
আফগান নারীরা তালেবানের চাপিয়ে দেয়া কালো পোশাকে নয়, নিজেদের ঐতিহ্যবাহী রঙিন পোশাকে উজ্জ্বল থাকতে চায়। তাই নিজেদের ঐতিহ্যবাহী রঙিন পোশাক পড়া ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করার মাধ্যমে এক প্রকার প্রতিবাদ ভাষা প্রকাশ করছে।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাসরত আফগান নারীরা সোশ্যাল মিডিয়ায় রঙিন আফগান পোশাকের ছবি পোস্ট করে তালিবানের হিজাবের আদেশের বিরুদ্ধে এ লড়াই করছে। হিজাব নয় রঙিন ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরা নারীদের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেখা গেছে।

আফগান ওইসব নারীরা নিজেদের রঙিন ঐতিহ্যবাহী এসব পোশাকের ছবি পোস্ট করার মাধ্যমে ‘গৌরবময় আফগান সংস্কৃতি’ সম্পর্কে বিশ্বকে জানানোর চেষ্টা করছে।

একজন নারী কি পোশাক পরবেন, তা সম্পূর্ণ নির্ভর করে তার পছন্দের উপর । যদি কোনো নির্দিষ্ট পোশাক চাপিয়ে দেওয়া হয়, সেটাকে পিতৃতন্ত্রের জায়গা থেকে চাপ প্রয়োগ করা বোঝায়। অনেক সংস্কৃতিতে, পুরুষ এবং নারীদের বিনয়ীভাবে পোশাক পরা প্রত্যাশা করা হয় । কিন্তু আফগানিস্তানের ঘটনাগুলি সেখানে নারীদের অবস্থা নিয়ে বিশ্বব্যাপী আলোচনার জন্ম দিয়েছে এবং তাদের পছন্দগুলি ছিনিয়ে নেওয়া হচ্ছে কি না এ নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।

যখনই তালেবানরা দেশটি দখল করে নেয়, সেখানে নারীদের অবস্থা নিয়ে বিশ্বব্যাপী আলোচনার ঝড় উঠেছে। বিশেষ করে নারীরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আসছে তালেবানের বেঁধে দেওয়া নিয়মে বোরকা-হিজাব পড়ে ।

সিএনএন- এর একটি প্রতিবেদনে বলা হয়, সম্প্রতি শ্রেণিকক্ষের ভেতরে লিঙ্গ-ভিত্তিক পৃথকীকরণ বাধ্যতামূলক করেছে তালেবান। তারা বলেছে যে, ছাত্রী, প্রভাষক এবং কর্মচারীরা যারা শিক্ষাগ্রহণ এবং প্রদান করছে তাদের অবশ্যই শরিয়া আইন অনুযায়ী হিজাব পরতে হবে।

সাম্প্রতিক সময়ে সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল একটি ভিডিও দেখা যাচ্ছে, যেখানে একদল নারী ছাত্রী কালো বোরখাতে মাথা থেকে পা পর্যন্ত ঢাকা কাবুলের একটি সরকার পরিচালিত বিশ্ববিদ্যালয়ের লেকচার হলে তালেবানের পতাকা নাড়ছে। এ যেন তাদের সংহতি প্রকাশ করছে।

নেটিজেনরা বলছেন যে এটি মহিলাদের উপর নিপীড়ন করে দেশের সংস্কৃতিকে হত্যা করার প্রচেষ্টা। বিশ্বজুড়ে বসবাসকারী আফগানরা তাদের বিরুদ্ধে কথা বলে। তাই সোশ্যাল মিডিয়ায়, তারা নিজেদের রঙিন ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরা ছবিগুলি পোস্ট করছে যা হিজাব নয়, বিশ্বকে গৌরবময় আফগান সংস্কৃতি সম্পর্কে আরও জানানোর প্রয়াসে। বিবিসি/দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস
0 Share Comment
National/International News Group
14 September 2021, 19:55

দুই ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জয় বাংলাদেশের

দুই ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জয় বাংলাদেশের
পাঁচ ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে টাইগার যুবাদের কাছে কোনাে পাত্তাই পেল না আফগানিস্তান অনূর্ধ্ব-১৯ দল। ১২১ রানের বড় ব্যবধানে জিতেছে এসএম মেহেরবের দল।

প্রথম ম্যাচে ১৬ রানে জয়ের পর সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ জেতে তিন উইকেটে। আজ তৃতীয় ম্যাচ ১২১ রানের বিশাল ব্যবধানে জিতে দুই ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জয় নিশ্চিত করল বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল।

মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) সকালে সিলেটে টসে জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশ অধিনায়ক এসএম মেহেরব। ৫ ওভারের মধ্যেই দুই উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়ে স্বাগতিকরা।

সেখান থেকে ধীর লয়ে ৬১ রানের জুটি গড়ে দলকে উদ্ধার করেন ওপেনার মফিজুল ইসলাম ও চারে নামা আইচ মোল্লা। ৯৩ বলে ২৭ রানের ইনিংস খেলে মফিজুল আউট হলেও যুব ওয়ানডেতে প্রথম সেঞ্চুরি তুলে নেন আইচ মোল্লা।

নিজের খেলা ৫ম বলে প্রথম রানের দেখা পান আইচ। ২৯ তম ওভারে যেয়ে আউট হন মফিজুল। ততক্ষণে সেট হয়ে যাওয়া আইচ মোল্লার রান ৬৬ বলে ২৪।

তবে ঐ ওভারেই ইজাজ আহমেদের বলে টানা দুই চার ও ১ টি ছক্কা হাঁকান আইচ। রান তোলাতে মন দেন ভালোভাবেই। প্রায় প্রতি ওভারেই চার ও ছক্কা আদায় করে নিচ্ছিলেন। ৭৪ বলে ফিফটি পূর্ণ করেন তিনি।

ফিফটি পূর্ণ হবার পর রান তোলার গতি কমেনি আইচের, অন্যপ্রান্তে অবশ্য সতীর্থদের সাজঘরে যেতে দেখেছেন। ফয়সাল খান আহমেদজাইকে চার মেরে সেঞ্চুরি আদায় করে নেন আইচ। ১২৪ বলে পূর্ণ করেন সেঞ্চুরি।

সেঞ্চুরির পর খুব বেশিক্ষণ টেকেননি আইচ। ১৩০ বলে ৮ চার ও ৪ ছক্কায় ১০৮ করে ফেরেন তিনি।

শেষে আব্দুল্লাহ আল মামুনের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে স্কোরবোর্ডে ২২২ রান জমা করে স্বাগতিকরা। ২০ বলে ১ চার ও ৩ ছক্কায় ৩২ রান করে অপরাজিত থাকেন আব্দুল্লাহ আল মামুন।

২২৩ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে খোলসবন্দী ছিলেন দুই আফগান ওপেনার। ১২.১ ওভার স্থায়ী জুটিতে আসে কেবল ২২ রান। এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে সফরকারীরা। সুলিমান সাফি (১৮), বিলাল সায়েদি (২২), ইজাজ আহমেদ (২১), জাহিদুল্লাহ সালিমি (১৩) ভালো শুরু পেলেও ইনিংস লম্বা করতে পারেননি।

নাইমুর রহমান নয়ন, রিপন মন্ডল, আরিফুল ইসলামদের বোলিং তোপে ১০১ রানেই গুটিয়ে যায় আফগান যুবারা। ১২১ রানের বড় জয় পায় বাংলাদেশ। যুব ওয়ানডেতে প্রথমবারের মত ৫ উইকেট শিকার করেন নাইমুর রহমান নয়ন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল ২২২/৬ (৫০), নাবিল ১, মফিজুল ২৭, খালিদ ০, আইচ ১০৮, মেহেরব ৭, তাজিবুল ১৮, মামুন ৩২*, আরিফুল ৪*; নাভিদ ৯-১-৪৮-১, আহমেদজাই ১০-১-৩৯-৩, ইজহারউলহক ১০-১-২৫-১, ইজাজ ১-০-১৫-১

আফগানিস্তান অনূর্ধ্ব-১৯ দল ১০১/১০ (৩৯.৪), বানুরি ৯, সুলিমান ১৮, বিলাল ২২, ইজাজ ২১, সালিমি ১৩, আহমেদজাই ২, হোটাক ৫, ফয়সাল ০, নাভিদ ১, হাসানি ৪, জাদরান ১*; রিপন ৭-২-১৭-৩, আরিফুল ১০-০-২৩-২, নয়ন ৭.৪-১-১৭-৫

ফলাফল: বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল ১২১ রানে জয়ী
ম্যাচসেরা: আইচ মোল্লা (বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল)।
0 Share Comment
National/International News Group
14 September 2021, 19:53

বিশ্ববিদ্যালয় খোলার তারিখ ঘোষণা

বিশ্ববিদ্যালয় খোলার তারিখ ঘোষণা
বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন ও উপাচার্যদের সঙ্গে বৈঠকে বিশ্ববিদ্যালয় খোলার ব্যাপারে বলা হয়েছে, ২৭ সেপ্টেম্বরের পর কর্তৃপক্ষ চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় খুলতে পারবে। সেক্ষেত্রে প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিল বৈঠক করে খোলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারবে।

মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হল খোলা ও ক্লাসে পাঠদান শুরুর বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর উপাচার্যদের সঙ্গে বৈঠক করেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। বৈঠক থেকে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আগামী ২৭ সেপ্টেম্বরের মধ্যে করোনা টিকার নিবন্ধন সম্পন্ন করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। যেসব শিক্ষার্থীদের জাতীয় পরিচয়পত্র নেই তারা জন্ম নিবন্ধন সনদের মাধ্যমে টিকার নিবন্ধন করতে পারবেন বলে বলা হয়েছে।

সিদ্ধান্তের বিষয়টি নিশ্চিত করে মঙ্গলবার দুপুরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা এম এ খায়ের জানান, ২৭ সেপ্টেম্বরের মধ্যে দেশের সব সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের টিকার জন্য রেজিস্ট্রেশন কাজ শেষ করতে হবে। এরপর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাদের একাডেমিক কাউন্সিলের অনুমোদনক্রমে বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠদান কার্যক্রম শুরু করতে পারবে। বিশ্ববিদ্যালয় চাইলে তাদের আবাসিক হল খুলে দিতে পারবে।

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পর ২০২০ সালের ১৭ মার্চ দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয়। দেড় বছর পর গত রোববার থেকে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো খুলে দেওয়া। সোমবার খুলেছে মেডিকেল কলেজ, ডেন্টাল ও নার্সিং সংক্রান্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।
0 Share Comment
National/International News Group
14 September 2021, 19:50

১০টি দৈনিক পত্রিকার ডিক্লারেশন বাতিল

১০টি দৈনিক পত্রিকার ডিক্লারেশন বাতিল
দীর্ঘদিন ধরে ধারাবাহিকভাবে বন্ধ থাকায় ঢাকা থেকে প্রকাশিত ৯টি দৈনিক বাংলা পত্রিকা ও একটি ইংরেজি দৈনিক পত্রিকার ডিক্লারেশন (ঘোষণাপত্র) বাতিল করা হয়েছে।

ঢাকার জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের স্বাক্ষরে গত ৮ সেপ্টেম্বরের প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানানো হয়। সোমবার সরকারের এক তথ্য বিবরণীতে এমনটা জানা গেছে।

ডিক্লারেশন বাতিল হওয়া দৈনিক পত্রিকাগুলো হলো—গণ আওয়াজ, দৈনিক জনসেবা, ঢাকা প্রকাশ, জাতির কণ্ঠ, কিষাণ, এই দেশ এই দিন, পূর্ব আলো, সময়ের পাতা, রিপোর্টার এবং ইংরেজি দৈনিক দি ফাইনান্সিয়াল ডেইলি।

১৯৭৩ সালের ছাপাখানা ও প্রকাশনা (ঘোষণা ও নিবন্ধন) আইনের ৯ (১)-এর (৩) (ক) ধারা এবং পত্রিকাগুলোর প্রকাশক ও সম্পাদকের বিরুদ্ধে চুক্তিপত্রের শর্ত না মানার কারণে একই আইনের ১০ ধারা মোতাবেক পত্রিকাসমূহের ডিক্লারেশন বাতিল করা হয়েছে।
0 Share Comment
National/International News Group
14 September 2021, 19:49

১৩০ টাকা বেতনের কম্পিউটার অপারেটর ৪৬০ কোটি টাকার মালিক!

১৩০ টাকা বেতনের কম্পিউটার অপারেটর ৪৬০ কোটি টাকার মালিক!


১৩০ টাকা বেতনের সামান্য কম্পিউটার অপারেটর পরবর্তীতে ৪৬০ কোটি টাকার মালিক হয়ে গেলেন। সময়টা ২০০১। টেকনাফ স্থলবন্দরে চুক্তিভিত্তিক দৈনিক ১৩০ টাকা বেতনে কম্পিউটার অপারেটর হিসেবে চাকরি নেন নুরুল ইসলাম (৪১)। সেই কিনা ৪৬০ কোটি টাকার সম্পদের মালিক বনে যান। এই টাকা দিয়ে তিনি সাভারে একটি রিসোর্ট ও বন্দরে একটি জাহাজ কিনতে চেয়েছিলেন।

এছাড়াও দালালিসহ অবৈধ পন্থায় অর্জিত অর্থের মাধ্যমে এরই মধ্যে ঢাকায় তার ৬টি বাড়ি ও ১৩টি প্লট রয়েছে। এছাড়া তার সাভার, টেকনাফ, সেন্টমার্টিন, ভোলাসহ বিভিন্ন জায়গায় নামে-বেনামে সর্বমোট ৩৭টি প্লট, বাগানবাড়ি ও বাড়ি রয়েছে। অবৈধভাবে তার অর্জিত সম্পদের আনুমানিক মূল্য প্রায় ৪৬০ কোটি টাকা।

চাকরির সুবাদে বন্দরের সংশ্লিষ্ট মানুষের সঙ্গে সখ্য গড়ে ওঠে নুরুল ইসলামের। একপর্যায়ে গড়ে তোলেন সিন্ডিকেট। দালালি, পণ্য খালাস, বৈধ পণ্যের আড়ালে অবৈধ মালামাল এনে অল্প সময়েই কোটি কোটি টাকার মালিক হয়ে যান এই কম্পিউটার অপারেটর।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি বলেন, সোমবার দিনগত রাতে রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে নুরুল ইসলামকে আটক করে র্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। এ সময় তার কাছ থেকে ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৫০০ জাল টাকা, ৩ লাখ ৮০ হাজার মিয়ানমারের মুদ্রা, ৪ হাজার ৪০০ পিস ইয়াবা ও নগদ ২ লাখ ১ হাজার ১৬০ টাকা উদ্ধার করা হয়।

তিনি আরও বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে একটি গোয়েন্দা সংস্থা ও র‌্যাবের যৌথ অভিযানে সোমবার দিনগত রাতে মোহাম্মদপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে নুরুল ইসলামকে (৪১) আটক করা হয়। তিনি ২০০১ সালে টেকনাফ স্থলবন্দরে চুক্তিভিত্তিক দৈনিক ১৩০ টাকা বেতনে কম্পিউটার অপারেটর হিসেবে চাকরি নেন।

আটক নুরুল টেকনাফ বন্দর কেন্দ্রীক দালাল সিন্ডিকেটের অন্যতম মূলহোতা উল্লেখ করে তিনি বলেন, তার সিন্ডিকেটের ১০-১৫ জন সদস্য রয়েছে। এই সিন্ডিকেটটি পণ্য খালাস, পরিবহন সিরিয়াল নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি অবৈধ মালামাল খালাসে সক্রিয় ছিল। এছাড়া, কাঠ, শুঁটকি, আচার, মাছের আড়ালে ইয়াবাসহ অবৈধ পণ্য নিয়ে আসতো। চক্রটি টেকনাফ বন্দর, ট্রাক স্ট্যান্ড, বন্দর লেবার ও জাহাজের আগমন-বহির্গমন নিয়ন্ত্রণ করতো।

তিনি বলেন, অবৈধ আয়ের উৎসকে ধামাচাপা দিতে সে বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান তৈরি করেন। এর মধ্যে এমএস আল নাহিয়ান এন্টারপ্রাইজ, এমএস মিফতাউল এন্টারপ্রাইজ, এমএস আলকা এন্টারপ্রাইজ, আলকা রিয়েল স্টেট লিমিটেড এবং এমএস কানিজ এন্টারপ্রাইজ অন্যতম। তার নামে-বেনামে বিভিন্ন ব্যাংকে মোট ১৯টি অ্যাকাউন্ট রয়েছে।
0 Share Comment
National/International News Group
14 September 2021, 19:48

চাকরি নয়, যৌনপল্লিতে বিক্রি হলো তরুণী

চাকরি নয়, যৌনপল্লিতে বিক্রি হলো তরুণী
বরিশালের প্রান্তিক গ্রামের ১৮ বছর বয়সী এক তরুণীকে চাকরি দেওয়ার নাম করে ঢাকার একটি যৌনপল্লিতে নিয়ে দুই লাখ টাকায় বিক্রি করা হয়েছে। সেখান থেকে পালিয়ে এসে বরিশাল মেট্রো পলিটন বন্দর থানায় তিনজনকে আসামি করে সোমবার রাতে মামলা দায়ের করেছে ভূক্তভোগি ওই তরুণী।

অভিযুক্তরা হলো- তরুণীর ফুফু, ফুফা ও চাচা। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বরিশাল মেট্রো পলিটন বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান। তিনি জানান, অভিযোগ মামলা হিসেবে গ্রহণ করেছি। তদন্ত সাপেক্ষে এর সঙ্গে আরও যারা জড়িত রয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

থানা সূত্র আরো জানায়, বরিশাল সদর উপজেলার চরকাউয়া এলাকার ওই তরুণীর দেড় বছর আগে বিয়ে হয়। পারিবারিক কলহের কারণে বিয়ের দুই মাসের মধ্যে বিবাহবেচ্ছেদ হয়। বাবার আর্থিক অবস্থা খারাপ হওয়ায় আপন ফুফু, ফুফা এবং চাচা তাকে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে ৯ মাস আগে ঢাকায় নিয়ে জুরাইন শনিরআখড়ার ভাড়া বাসায় রাখেন।

ওই তরুণী মামলার এজাহারে অভিযোগ করেন, চাকরির কথা বলে ঢাকায় নিলেও সেখানে গিয়ে দেখেন, অবৈধ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত অনেক ছেলে-মেয়ে বাসাটিতে আসা যাওয়া করে। কয়েকদিন পর তার ফুফু ও ফুফা তাকেও দেহ ব্যবসায় বাধ্য করেন। তরুণী তাতে বাধা দিলে তারা তাকে মারধর করেন। গলা চেপে, মাথা দেয়ালের সঙ্গে আঘাত করে নির্যাতন চালায়। এভাবে দীর্ঘ পাঁচ মাস সেখানে একটি কক্ষে আটকে রেখে তাকে দেহ ব্যবসায় বাধ্য করা হয়।

ভুক্তভোগী ওই তরুণী তার অভিযোগে আরও উল্লেখ করেন, এসময় তাকে মা-বাবার সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা থেকে বিচ্ছিন্ন রাখা হয়। সারাক্ষণ ফুফু পাশে থাকতেন। এরই মধ্যে চার মাস আগে তাকে অন্য আরেকজনের কাছে দুই লাখ টাকায় বিক্রি করে দেয়া হয়। সেখানে কিছু দিন থাকার পর এক নারীর সহায়তায় পালিয়ে বরিশাল বন্দর থানার নিজ বাড়িতে ফিরে আসেন।

তরুণীর বাবা বলেন, মেয়ে বাড়িতে ফিরে আসার পর আমার বোন, জামাই এবং ভাই আমাকে তাদের বাড়িতে নিয়ে আটকে রাখে। তবে স্থানীয়দের সহায়তায় আমি মুক্তি পাই। আমার ভাই বলে, সাক্ষীকে মেরে ফেলতে হবে। মেয়েকে জীবিত রাখলে আমরা বিচার চাইব। এ জন্য তাকে মেরে ফেলা উচিত। আমার মেয়ের সঙ্গে যে অন্যায় হয়েছে তার কঠিন বিচার চাই।

তরুণীর মা বলেন, ফুফু হয়েও ভাইয়ের মেয়েকে যৌনপল্লিতে বিক্রি করে দেবে এটা বুঝতে পারিনি। আমি এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। তারা আমার আপন দুই ননদকেও বিক্রি করে দিয়েছে। তাদের দেশের বাইরে পাচার করে দিয়েছে। সেখানে জীবন বাঁচাতে তারা পুলিশের হাতে ধরা দিয়েছে।

ওই তরুণীর মা আরও বলেন, তারা মানবপাচার চক্রের সঙ্গে জড়িত। তাদের মূল ব্যবসা হচ্ছে মানুষ বিক্রি করা এবং মেয়েদের দেহ ব্যবসায় বাধ্য করা।

এদিকে আরও এক নারী থানায় অভিযোগ করেছেন, ওই তিনজন তার মেয়েকেও ঢাকায় নিয়ে যৌনপল্লিতে বিক্রি করার চেষ্টা করেন। কিন্তু মেয়ে কৌশলে এই চক্রের হাত থেকে পালিয়ে এসে রক্ষা পান।
0 Share Comment
National/International News Group
14 September 2021, 19:47

যশ-নুসরাত রসায়ন নিয়ে মুখ খুললেন শ্বেতা

যশ-নুসরাত রসায়ন নিয়ে মুখ খুললেন শ্বেতা
যশ-নুসরত রসায়ন নিয়ে মুখ খুললেন এবার স্বয়ং যশ দাশগুপ্তের প্রাক্তন স্ত্রী শ্বেতা সিংহ কালহানস। এ নিয়ে প্রথমবার তিনি মুম্বাই থেকে ফোনে সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে তার অভিমত ব্যক্ত করেন।

যশের প্রাক্তন স্ত্রী শ্বেতা মুম্বাইয়ের একটি সংবাদমাধ্যমে কাজ করেন। তিনি জানান, মুম্বাইয়ে যশের সাথে তার বিয়ে হয়েছিল এবং ১০ বছরের একটি ছেলেও আছে তাদের।

তিনি আরো বলেন, যশ এখন এমনিতেই বিতর্কের মধ্যে আছে। আমাদের ডিভোর্স হয়ে গেছে তাই তার সাথে আমার সম্পর্ক নিয়ে খুব বেশি কিছু বলব না। কারণ, যশ আমার ছেলের বাবা। ওর সঙ্গে সেই সূত্র ধরে যেটুকু যোগাযোগ রাখতে হয় রাখি।

শ্বেতা এও জানিয়েছেন, আমাদের (যশ-শ্বেতা) সন্তান পারস্পরিক (দুজনের) তত্ত্বাবধানেই রয়েছে। ডিভোর্সের সময় আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। তবে আমার মনে হয় ,যশ কীভাবে নিজেকে প্রকাশ করবে, তার সিদ্ধান্ত ওর নিয়ে নেওয়া উচিত।

নুসরাত প্রসঙ্গে তিনে বলেন, ‘আমি নুসরাতকে দেখেছি। কিন্তু চিনি না। তাই কিছু বলতে চাই না’।

তিনি আরো বলেন, ইন্ডাস্ট্রির আমি কেউ নই। আর যশের সঙ্গে আমার তো বিচ্ছেদ হয়েই গেছে। আমার অতীত নিয়ে অনেক দিন থেকেই ভাবনা-চিন্তা বন্ধ করে দিয়েছি। আমি এখন একার জীবন নিয়েই স্বপ্ন দেখি। মনে হয় স্বপ্নে বাঁচিও।

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা
0 Share Comment
National/International News Group
14 September 2021, 19:43

কর্তৃপক্ষ ব্যর্থ হলে শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান বন্ধের হুশিয়ারি দীপু মনির

কর্তৃপক্ষ ব্যর্থ হলে শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান বন্ধের হুশিয়ারি দীপু মনির
করোনা ও ডেঙ্গুর প্রকোপ থেকে শিক্ষার্থীদের রক্ষায় শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষ নির্দেশনা না মানলে সেই প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ার করেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

মঙ্গলবার বিকালে রাজধানীর ইডেন কলেজে নতুন ভবন উদ্বোধন ও মৎস্য পোনা অবমুক্তকালে এ কথা জানান তিনি।

দীপু মনি বলেন, ‘আমরা অনেক নজরদারি করতে পারি, কিন্তু কর্তৃপক্ষ যদি সচেতন না হন, নিয়ম না মানার প্রবণতা থাকে এবং ধারাবাহিকভাবে নিয়ম ভঙ্গ করে, তাহলে সেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হবে। তার কারণ হচ্ছে, আমরা এ ঝুঁকি আমরা নেবো না।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘একটা স্কুল বা মাদ্রাসায় যদি ছড়ায় (করোনা) তাহলে সেটি কিন্তু সেই প্রতিষ্ঠানে সীমাবদ্ধ থাকবে না। সেটি পুরো কমিউনিটিতে ছড়াবে, আমরা সেই ঝুঁকি নিতে পারি না। কাজেই সেই প্রতিষ্ঠান যে স্তরেরই হোক মাদ্রাসা, কারিগরি প্রাথমিক মাধ্যমিক— সেখানে যদি কোনও অবহেলা থাকে, তাহলে সেটি আমরা ঠিক করার চেষ্টা করবো। কেউ যদি বারবার নিয়ম ভঙ্গ বা অবহেলা করে, তাহলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের নির্দেশনা সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য— বাংলা ও ইংরেজি মাধ্যম ভাগ নেই। কোনও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যদি না খুলে থাকে, অবহেলা করে থাকে, তাহলে আমাদের জানাবেন।’
0 Share Comment
Deshi Group
13 September 2021, 23:45

ওটিটি প্ল্যাটফর্ম নীতিমালার খসড়া সম্পন্ন: তথ্যমন্ত্রী

ওটিটি প্ল্যাটফর্ম নীতিমালার খসড়া সম্পন্ন: তথ্যমন্ত্রী


তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় ওটিটি প্ল্যাটফর্ম বিষয়ে নীতিমালার খসড়া প্রস্তুত করেছে, শিগগিরই তা প্রজ্ঞাপন আকারে জারি করা হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

আজ দুপুরে সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে মন্ত্রী একথা জানান।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের মন্ত্রণালয়ের অন্যতম প্রধান কাজ ‘রেগুলেটরি জব’; নীতি, নীতিমালা তৈরি করে এই গণমাধ্যমের ক্রমবিকাশকে এগিয়ে নেয়া। ওটিটি প্ল্যাটফর্ম এটি একটি ক্রমবর্ধমান বাস্তবতা। কিন্তু ওটিটি প্ল্যাটফর্মে সিনেমা, নাটক, ওয়েব সিরিজ বা কোনো কন্টেন্ট রিলিজ করতে হলে এখনও অনুমোদনের ব্যবস্থা নেই। আমি সাম্প্রতিক ভারত সফরে সেখানকার তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রীর সাথে তারা কিভাবে বিষয়টিকে দেখভাল করছে সেবিষয়ে আলাপ করেছি। তারা গত ফেব্রুয়ারি মাসে এ নিয়ে প্রজ্ঞাপন আকারে একটি নীতিমালা জারি করেছে, সেখান থেকে পরিচালিত সমস্ত ওটিটি প্ল্যাটফর্মকে এই নীতিমালা অনুসরণ করতে হবে। সেই নীতিমালার ব্যত্যয় হলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। আমরা ইতোমধ্যেই নীতিমালার প্রাথমিক খসড়া তৈরি করেছি। সেই নীতিমালা খুব শিগগির প্রজ্ঞাপন আকারে জারি করতে পারবো বলে আশা করছি।’

ওটিটি প্ল্যাটফর্মের কন্টেন্ট এতো বিস্তৃত এবং ব্যাপক যে, সেন্সর বোর্ডের মাধ্যমে সেন্সর করা দুরূহ কাজ উল্লেখ করে ড. হাছান বলেন, ‘বছরে ৫০টি বা ১০০টি সিনেমা রিলিজ হয়, সেটি সেন্সর করা সহজ। কিন্তু ওটিটি’র হাজার কন্টেন্ট সেন্সর করা সহজ কাজ নয়। সেকারণে ভারতসহ অন্যান্য দেশে যেভাবে করা হচ্ছে সেভাবে একটি নীতিমালা খসড়া তৈরি করেছি যা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর প্রজ্ঞাপন আকারে জারি করবো। এটা এজন্য যাতে করে আমাদের কৃষ্টি, সংস্কৃতি, ঐতিহ্য ক্ষতিগ্রস্ত হয় বা সমাজ ও মানুষকে ভুল পথে পরিচালিত করে, বিজাতীয় সংস্কৃতি উৎসাহিত হয় কিম্বা আমাদের তরুণ সমাজকে বিভ্রান্ত করতে পারে, এমন কোনো কন্টেন্ট সেখানে না যায়।’

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সম্পর্কে এসময় ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বর্তমানে গণমাধ্যমের সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম যুক্ত হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম মানুষকে মতপ্রকাশের অবারিত সুযোগ করে দিয়েছে, একইসাথে অনেক ক্ষেত্রে সমাজে নানাধরণের অস্থিরতা তৈরি, সরকার ও ব্যক্তি বিশেষের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানোর সুযোগ হিসেবেও এটির ব্যবহার লক্ষণীয়। মূলধারার গণমাধ্যমগুলো সঠিকভাবে কাজ করেছে কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেশ-বিদেশ থেকে করোনাকালেও অনেক গুজব রটানো এবং মানুষকে বিভ্রান্তকরার চেষ্টা করা হয়েছে। আমাদের মন্ত্রণালয় এই ক্ষেত্রে শৃঙ্খলা আনার জন্য অনলাইন সংবাদ পোর্টাল, আইপি টিভি’র রেজিস্ট্রেশন দেয়া শুরু করাসহ অনেকগুলো কাজ ইতিমধ্যেই করেছে।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা দেখতে পাচ্ছি, বিদেশে বসে বিভিন্ন ব্যক্তি বিশেষ নির্দিষ্ট কয়েকটি অনলাইন পোর্টাল ব্যবহার করে মাঝে মধ্যেই নানা অপপ্রচার চালাচ্ছে। সরকারের পক্ষ থেকে অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের সাথে সমন্বয়ের মাধ্যমে আমরা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করি। এই ক্ষেত্রে দেখা যায়, যারা সার্ভিস প্রোভাইডার তাদের কাছ থেকে যে ধরণের সহযোগিতা পাওয়া প্রয়োজন সবসময় সে ধরণের সহযোগিতা পাওয়া যায়নি। এজন্য আমরা সার্ভিস প্রোভাইডারদের সাথে যেমন আলোচনা করছি একইসাথে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, যে সমস্ত ব্যক্তি বিশেষ বিভিন্ন অনলাইন পোর্টালের মাধ্যমে যে সমস্ত দেশ থেকে এই অপপ্রচারগুলো চালায় সেই সমস্ত দেশের আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

এসময় উদাহরণ দিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘রিপোর্টার্স স্যান্স ফ্রন্টিয়ার্স কিছু দিন আগে প্রধানমন্ত্রীর বিষয়ে প্রচন্ড আপত্তিকর শব্দ ব্যবহার করে একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছিল। আমরা তথ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সেটির প্রতিবাদ জানিয়েছিলাম এবং আমরা জানিয়েছিলাম যে, এটি যদি সংশোধন করা না হয়, তাহলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। ‘রিপোর্টার্স স্যান্স ফ্রন্টিয়ার্সের অফিস ফ্রান্সের প্যারিসে। ফরাসি আইনজীবীর মাধ্যমে তাদেরকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়েছে। ফরাসি আইন অনুযায়ী এমন কি ইউরোপীয় ইউনিয়নের আইন অনুযায়ী এভাবে ব্যক্তি বিশেষকে কটাক্ষ করে কিম্বা টার্গেট করে অহেতুক যে ধরণের রিপোর্ট তারা প্রকাশ করছিল, সেটি করতে পারে না। ফরাসি আইনের সেই ধারা উল্লেখ করে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সংশ্লিষ্ট আইনের উল্লেখ করে তাদেরকে লিগ্যাল নোটিশ দেয়া হয়েছে। আমরা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি যে, অন্যান্য দেশ থেকেও যারা এ সমস্ত কাজগুলো করছেন তাদের বিরুদ্ধেও একই ধরণের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’
0 Share Comment
Deshi Group
13 September 2021, 23:44

দেশে ৩ কোটি ৫১ লাখ ৬০ হাজার ৮৫০ ডোজ করোনার টিকা প্রয়োগ

দেশে ৩ কোটি ৫১ লাখ ৬০ হাজার ৮৫০ ডোজ করোনার টিকা প্রয়োগ


দেশে এ পর্যন্ত ৩ কোটি ৫১ লাখ ৬০ হাজার ৮৫০ ডোজ করোনা টিকার প্রয়োগ হয়েছে। এর মধ্যে প্রথম ডোজ নিয়েছেন ২ কোটি ১১ লাখ ৪০ হাজার ৩৭৮ এবং দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ১ কোটি ৪০ লাখ ২০ হাজার ৪৭২ জন মানুষ।

এ পর্যন্ত প্রথম ডোজ টিকা গ্রহীতাদের মধ্যে পুরুষ ১ কোটি ১৯ লাখ ৯৬ হাজার ৬৮০ আর নারী ৯১ লাখ ৪৩ হাজার ৬৯৮ জন। দ্বিতীয় ডোজ টিকা গ্রহীতাদের মধ্যে পুরুষ ৮১ লাখ ৪৩ হাজার ৭২৬ আর নারী ৫৮ লাখ ৭৬ হাজার ৭৪৬ জন।

এরমধ্যে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা কোভিশিল্ড প্রয়োগ হয়েছে ১ কোটি ২৩ লাখ ৫৫ হাজার ২৫৬ ডোজ। ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকা প্রয়োগ হয়েছে ১ লাখ ৩১১ ডোজ। চীনের সিনোফার্মের টিকা প্রয়োগ হয়েছে ১ কোটি ৭৮ লাখ ৪৫ হাজার ৯৯৬ ডোজ। আর মডার্নার টিকা প্রয়োগ হয়েছে ৪৮ লাখ ৫৯ হাজার ২৮৭ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মিজানুর রহমান স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানা গেছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, আজ বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত ৪ কোটি ১৩ লাখ ৮৫ হাজার ৭৫৯ জন করোনা টিকার জন্য নিবন্ধন করেছেন।

এরমধ্যে জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর দিয়ে ৪ কোটি ৮ লাখ ২৮ হাজার ৫১৪ এবং পাসপোর্ট নম্বর দিয়ে ৫ লাখ ৫৭ হাজার ২৪৫ জন নিবন্ধন করেছেন।
0 Share Comment
Deshi Group
13 September 2021, 23:40

টিকা না নিলে কোভিডে মৃত্যুর ঝুঁকি ১১ গুণ বেশি: সিডিসি
শিরোনাম:

টিকা না নিলে কোভিডে মৃত্যুর ঝুঁকি ১১ গুণ বেশি: সিডিসি      

শিক্ষা কার্যক্রমকে সময়োপযোগী করা অপরিহার্য: প্রধানমন্ত্রী      

প্রতিদিন ছয় ঘণ্টা বন্ধ থাকবে সিএনজি স্টেশন      

থাকছে না পিইসি-জেএসসি পরীক্ষা!      

এহসান গ্রুপের চেয়ারম্যান রাগীবসহ চার ভাই ৭ দিনের রিমান্ডে      

শ্রেণিকক্ষে উচ্ছ্বাস, বাইরে উৎকণ্ঠা      

সংসদ সদস্য মাসুদা চৌধুরী মারা গেছেন      

টিকা না নিলে কোভিডে মৃত্যুর ঝুঁকি ১১ গুণ বেশি: সিডিসি
কোভিড-১৯ টিকা না নেওয়া ব্যক্তিদের মৃত্যুর ঝুঁকি যারা পুরো ডোজ টিকা নিয়েছেন, তাদের তুলনায় ১১ গুণ বেশি বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার্স ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন-সিডিসি।

করোনাভাইরাসের ‘ডেল্টা ধরন’ টিকা নেওয়া ব্যক্তিদের প্রতিরোধ ক্ষমতা ভেদ করতে পারলেও গুরুতর অসুস্থতা ঠেকাতে টিকার কার্যকারিতা তুলে ধরা হয়েছে সিডিসির নতুন এক প্রতিবেদনে।

সিডিসির পরিচালক ডা. রোশেল ভলেনস্কি শুক্রবার এক ব্রিফিংয়ে বলেন, গত দুই মাস ধরে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের দাপটের মধ্যে দেখা গেছে, যারা টিকা নেননি তাদের কোভিড আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি সাড়ে চারগুণ বেশি, হাসপাতালে ভর্তির সম্ভাবনা ১০ গুণ বেশি এবং মৃত্যুর শঙ্কা ১১ গুণ বেশি।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর হার নিয়ে সাপ্তাহিক প্রতিবেদনে তিনটি সমীক্ষার ফল থেকে সংস্থাটি এসব তথ্য প্রকাশ করেছে বলে সিবিসি নিউজের একটি প্রতিবেদনে বলা হয়।

এসব তথ্য বলছে, সামনের দিনগুলোতে অনেকেরই বুস্টার ডোজ বা টিকার তৃতীয় ডোজ দরকার হতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রের ১৩টি অঞ্চলে পরিচালিত সিডিসির সমীক্ষায় দেখা গেছে, ডেল্টা ধরনের বিস্তারের মধ্যে টিকার পূর্ণ ডোজ পাওয়া ব্যক্তিদের আক্রান্ত হওয়ার হার দেশজুড়েই বেড়েছে।

বিজ্ঞানীরা আশা করেছিলেন, সংক্রমণ ঠেকাতে টিকার কার্যকারিতা সর্বোচ্চ পর্যায়ে থাকলে পূর্ণ ডোজ পাওয়া ব্যক্তিদের গত জুনের শেষ থেকে জুলাই মাস পর্যন্ত আক্রান্তের হার ১০ শতাংশ হতে পারে।

কিন্তু সমীক্ষায় টিকার পূর্ণ ডোজ নেওয়া ব্যক্তিদের আক্রান্তের হার ১৮ শতাংশ পাওয়া গেছে জানিয়ে ওই সমীক্ষা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, “সার্স-কোভ-২ ভাইরাস সংক্রমণের বিরুদ্ধে টিকার প্রতিরোধ ক্ষমতা অব্যাহতভাবে কমে আসছে।”

জুলাইয়ের মাঝামাঝি সময়ে পরিচালিত সিডিসির আরেক সমীক্ষায় দেখা গেছে, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি এবং মৃত্যুর হার ঠেকাতে ভালো কার্যকারিতা দেখাচ্ছে টিকা।

কিন্তু সিডিসির প্রকাশিত নতুন তথ্যে দেখা গেছে, যুক্তরাষ্ট্রে বয়স্ক ব্যক্তিদের গুরুতর অসুস্থতা ঠেকাতে টিকার কার্যকারিতা দুর্বল হয়ে আসছে।
কয়েকশ হাসপাতাল এবং জরুরি সেবা ক্লিনিকের জোট ‘ভিশন নেটওয়ার্ক’ এর তথ্য বিশ্লেষণ করে সিডিসির প্রতিবেদেন বলা হয়, গত অগাস্ট মাসে ৭৫ বছর ও তার বেশি বয়সীদের হাসপাতালে ভর্তি ঠেকাতে টিকার কার্যকারিতা তরুণদের তুলনায় ‘উল্লেখযোগ্য পরিমাণ কম’।

নিজেদের তথ্য বিশ্লেষণ করে একই উপসংহারে পৌঁছেছে কয়েকটি ‘ভেটেরানস অ্যাফেয়ার্স মেডিকেল সেন্টার’। তাদের আনুমানিক হিসাব বলছে, ৬৫ বছর ও তারচেয়ে বেশি বয়সীদের হাসপাতালে ভর্তি ঠেকাতে টিকা ৮০ শতাংশ কার্যকর।

দুটি সমীক্ষাতেই বলা হয়, হাসপাতালে ভর্তি ঠেকাতে টিকার কার্যকারিতা আগের চেয়ে কমে আসছে।

সিডিসি এর আগে জানিয়েছিল, একটি দলের ওপর পরিচালিত জরিপে হাসপাতালে ভর্তি ঠেকাতে টিকার কার্যকারিতা সময়ের সঙ্গে সঙ্গে কমে আসতে দেখা গেলেও গত জুলাই মাসেও তা ৮০ শতাংশের বেশি ছিল।

যুক্তরাষ্ট্রের চিকিৎসা কর্মকতারা দেশজুড়ে টিকার বুস্টার ডোজ দেওয়ার পরিকল্পনা করছেন জানানোর পর সিডিসির প্রতিবেদনে নতুন এসব তথ্য উঠে এল।

তবে যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য ও ওষুধ দপ্তর এখনও বুস্টার ডোজের অনুমোদন দেয়নি এবং সিডিসির টিকা বিষয়ক বিশেষজ্ঞদের প্যানেলও আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো সুপারিশ এখনও করেনি।

সিবিসি নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়, বুস্টার ডোজের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ওষুধ কোম্পানি ‘ফাইজার’ প্রথম অনুমোদন পেতে পারে।

চিকিৎসা কর্মকর্তারা বলছেন, কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ‘মডার্না’ এবং ‘জনসন অ্যান্ড জনসন’ এর বুস্টার ডোজের টিকার অনুমোদন দেওয়ার বিষয়েও তারা আশাবাদী। তবে ওষুধ কোম্পানি দুটির টিকার পর্যাপ্ত তথ্য এখনও পাওয়া যায়নি।

অন্যান্য দেশের তথ্য বিবেচনায় নিয়ে বাইডেন প্রশাসনের পক্ষ থেকে সংক্রমণের ঝুঁকিতে থাকা লোকজনকে টিকার বুস্টার ডোজ দেওয়ার গুরুত্ব তুলে ধরা হচ্ছে। এক্ষেত্রে ইসরায়েলের উদাহরণ দেওয়া হচ্ছে, যেখানে ইতোমধ্যে বুস্টার ডোজ দেওয়া শুরু হয়েছে।

বুধবার ‘লন্ডন স্কুল অব হাইজিন অ্যান্ড ট্রপিক্যাল মেডিসিন’ আয়োজিত এক ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ অ্যান্থনি ফাউচি বলেন, “ইসরায়েলে যা ঘটছে তা খুবই আগ্রহ উদ্দীপক, কারণ টিকা দেওয়াসহ সংক্রমণ প্রতিরোধে প্রতিটি বিষয়েই তারা যুক্তরাষ্ট্রের চেয়ে এগিয়ে আছে।”

যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় সরকারের সহায়তায় ‘ইয়েল ইউনিভার্সিটির’ গবেষকদের একটি সমীক্ষা প্রতিবেদনে সম্প্রতি বলা হয়, টিকার আগাম বুস্টার ডোজ দেওয়া হলে সংক্রমণের হার ৬৮ শতাংশ কমে আসতে পারে। তবে এই প্রতিবেদনের কোনো পর্যালোচনা হয়নি বলে জানিয়েছে সিবিসি নিউজ।

ইসরায়েলি চিকিৎসা কর্মকর্তারা বাইডেন প্রশাসনকে তাদের বুস্টার ডোজ কর্মসূচির অপ্রকাশিত বেশ কিছু তথ্য জানিয়েছেন বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেট বুস্টার ডোজ দেওয়ার পরিকল্পনায় গতি বাড়ানোর আহ্বান জানান। প্রথম পর্বে দুই ডোজ টিকা পাওয়ার ৮ মাস পর যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের তৃতীয় ডোজ দেওয়ার পরিকল্পনা করা হচ্ছে।
0 Share Comment
Deshi Group
13 September 2021, 23:36

ধামইরহাটের শিক্ষিকা মাহমুদা র্ভাচুয়াল ক্লাশে দেশ সেরা

ধামইরহাটের শিক্ষিকা মাহমুদা র্ভাচুয়াল ক্লাশে দেশ সেরা
নওগাঁর ধামইরহাট উপজেলার সহকারী শিক্ষিকা মাহমুদা আক্তার প্রাথমিক অনলাইন ক্লাসে দেশ সেরা কৃতিত্বো অর্জন করেছেন। ফলে একাধিক সম্মাননা, সনদ ও ক্রেস্ট পেয়েছেন। গর্বিত উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি। দেশ সেরা এই মেধাবী শিক্ষিকা ধামইরহাট মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।
জানা গেছে, গত বছর ২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে করোনার কারণে সারা দেশের সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেন সরকার। কোমলমতি শিশু শিক্ষার্থীরা শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হয়ে পড়ে। সহকারী শিক্ষিকা মাহমুদা আক্তার নিজ উদ্যোগে ওই বছরের এপ্রিল মাস থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের নিজ টাইমলাইন থেকে ক্লাস নিতে শুরু করেন। এতে বিপুল সংক্ষক শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে, ফলে দেশের বিভিন্ন জেলায় দৃষ্টি কাড়েন শিক্ষক মাহমুদা আক্তার। এরপর মে মাস থেকে নওগাঁ জেলাসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন স্কুলে অনলাইনে ক্লাস নেওয়া শুরু করেন।
বিষয়টি উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নজরে আসলে এটুআই কর্তৃক পরিচালিত ‘ঘরে বসে শিখি পেইজ’ বাংলাদেশ আলোকিত প্রাথমিক শিক্ষক পেইজ, রাজশাহি ডিভিশনাল অনলাইন স্কুল, ময়মনসিং, নওগাঁ দিনাজপুর, নীলফামারী, খাগড়াছড়ি অনলাইন স্কুলসহ বিভিন্ন জেলার স্কুলে ক্লাস নেওয়া শুরু করেন। প্রধানমন্ত্রীর নিয়ন্ত্রণাধীন এটুআই কর্তৃক পরিচালিত শিক্ষক বাতায়নে সহকারী শিক্ষক মাহমুদা আক্তারের কাজের স্বীকৃতি স্বরুপ তাকে ২০২০ সালের ১৩ নভেম্বরে নওগাঁ জেলার একমাত্র নারী ICT4E district ambassador হিসেবে নিয়োগ করেন। পুরো দেশে মোট ২৪ হাজার ৭ জন এ্যাম্বাসেডর রয়েছেন এবং শিক্ষক বাতায়নে মোট সদস্য রয়েছেন ৫ লাখ ৮৭ হাজার ৫৭৮ জন।
অনলাইন ক্লাসের সুনাম এবং প্রাপ্তি স্বরুপ বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা থেকে শিক্ষিকা মাহমুদা আক্তারকে সম্মাননা সার্টিফিকেট, সংবর্ধনা এবং ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। সর্বশেষ “শিক্ষক বাতায়ন” তার কাজের সর্বোচ্চ স্বীকৃতিস্বরূপ চলতি মাসের ১ তারিখে সহকারী শিক্ষিকা মাহমুদা আক্তারকে পুরো বাংলাদেশের সেরা অনলাইন পারফর্মার হিসেবে মনোনীত করেন। শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের সচিব থেকে শুরু করে পুরো দেশে একমাত্র অনলাইন পারফর্মার মাহমুদা আক্তার সকলের নজরে আসেন। শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের সচিব’ পর্যায়ের মিটিংয়ের নির্দেশ অনুযায়ী তিনি নিয়মিত Google meet (গুগল মিট, অনলাইনে) এ শিশুদের পাঠদান করে থাকেন। চলতি বছরে ২ মে থেকে সরকার অন্তবর্তীকালীন পাঠ পরিকল্পনা দেন। সেই পাঠ পরিকল্পনা অনুযায়ী তিনি ধামইরহাটের প্রত্যন্ত এলাকায় গিয়ে শিশুদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে নিয়মিত সরকারের নির্দেশনাতে শিক্ষার্থীদের বাড়ির কাজ (হোম ওয়ার্ক) দিয়ে আসতেন এবং শিশুদের পড়া বুঝিয়ে দিতেন। এছাড়া করোনা মহামারীতে প্রতিটি শিক্ষার্থীদের ফোনে, সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে বাড়ীতে গিয়ে, ফেসবুক লাইভে, অলনাইনে ক্লাস নিয়েছেন, প্রতিটি শিশুকে আলাদা আলাদা ভাবে শিক্ষা প্রদান করে তাদের শিখন ঘাটতি দূর করার চেষ্টা করেছেন।
দেশসেরা সহকারী শিক্ষক মাহমুদা আক্তার জানান, ২০০৩ সাল থেকে আমি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একজন সহকারী শিক্ষক পদে কর্মরত আছি। ১৮ বছর চাকুরী জীবনে আমি দু’বার ধামইরহাট উপজেলার শ্রেষ্ঠ সহকারী শিক্ষক হিসেবে নির্বাচিত হয়েছি। বর্তমানে দেশের অন্যতম হওয়ায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি, আমার এ অর্জন উৎস্বর্গ করছি প্রাথমিকের পুরো শিক্ষক সমাজকে।
ধামইরহাট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রধান শিক্ষক আবু ইউসুফ মো. বদিউজ্জামান বকুল বলেন, ‘আমাদের সহকর্মী শুধু ধামইরহাট নয়, পুরো দেশের মুখ উজ্জল করেছে।’
উপজেলা নির্বাহী অফিসার গনপতি রায়, মাহমুদা আক্তার শুধু ধামইরহাট নয়, পুরো দেশে শিক্ষকতা করেছেন, যার ফলে তাকে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ উপযুক্ত ও সর্বোচ্চ সম্মান প্রদান করেছেন, উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাকে সম্মাননা প্রদান করা হবে।’
0 Share Comment
Deshi Group
13 September 2021, 23:35

২০৩৫ সাল নাগাদ বৈদ্যুতিক গাড়ির চাহিদা বাড়বে ১১ গুণ

২০৩৫ সাল নাগাদ বৈদ্যুতিক গাড়ির চাহিদা বাড়বে ১১ গুণ


বিশ্বের সব দেশই কমবেশি কার্বন নিঃসরণ শূন্যে নামিয়ে আনার বিষয়ে কাজ করছে, সচেতনতা সৃষ্টি করছে। এমন বাস্তবতায় পেট্রল বা ডিজেল নয়, বরং বিদ্যুচ্চালিত যানবাহনের (ইভি) প্রতি আগ্রহী হচ্ছে সাধারণ মানুষ। দেশগুলোও চাইছে বৈদ্যুতিক গাড়ির ওপর নির্ভরতা বাড়াতে। সাম্প্রতিক এক গবেষণা বলছে, এসব কারণে ১৫ বছরের মধ্যে বৈদ্যুতিক গাড়ির বিষয়ে বিশ্বের মানুষের আগ্রহ বাড়বে ১১ গুণ। খবর কিয়োদো নিউজ।

জাপানভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ফুজি কেইজাই কো তাদের সর্বশেষ পূর্বাভাসে জানায়, ২০৩৫ সাল নাগাদ পুরোপুরি বিদ্যুচ্চালিত গাড়ির বিশ্বব্যাপী বাজার দাঁড়াবে ২ কোটি ৪১ লাখ ৮০ হাজার ইউনিট। সে সময় পেট্রল-বৈদ্যুতিক হাইব্রিড গাড়ির বাজার হবে ১ কোটি ৩৫ লাখ ৯০ হাজার ইউনিট এবং প্লাগ ইন হাইব্রিড গাড়ির বাজার দাঁড়াবে ১ কোটি ১৪ লাখ ২০ হাজার ইউনিট।

গবেষণা প্রতিষ্ঠানটি বলছে যে, দীর্ঘমেয়াদে বৈদ্যুতিক গাড়িই প্রধান বাহন হয়ে উঠবে। কারণ সময়ের সঙ্গে সঙ্গে এটির দাম কমবে এবং চার্জ দেয়ার ব্যবস্থাসহ আরো নতুন অবকাঠামো তৈরি হবে। ২০২২ সালের শুরু থেকেই এ গাড়ির চাহিদা ঊর্ধ্বমুখী হবে বলেও আশা করা হচ্ছে।

বৈশ্বিক উষ্ণতা মোকাবেলায় নানা পদক্ষেপ নেয়ার কারণে গাড়ি নির্মাণ শিল্পে কৌশলগত পরিবর্তন সৃষ্টি হয়েছে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন চায়, ২০৩৫ সালের পর থেকে নতুন করে যেন হাইব্রিডসহ অভ্যন্তরীণ কম্বাসশন ইঞ্জিনচালিত গাড়ি বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। বছরজুড়ে এ ধরনের ব্যবস্থা বাস্তবায়ন শুরু করেছে জাপান, চীনসহ অন্যান্য বড় বাজার।

ইউরোপ ও চীনের বাজারে বৈদ্যুতিক গাড়ির বিক্রি অনেক বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে। একটি পূর্বাভাস বলছে, ২০৩৫ সাল নাগাদ বিশ্বের ৭৪ শতাংশ বৈদ্যুতিক গাড়ির বাজার হবে এ দুটি অঞ্চল। ২০২০ সাল থেকে হিসাব করলে আগামী ১৫ বছরে চীনে ইভি বিক্রি ৯ দশমিক ২ গুণ বেড়ে ৯৩ লাখ ৬০ হাজার ইউনিটে দাঁড়াবে। চীন অন্য দেশগুলোর তুলনায় সাশ্রয়ী দামের গাড়ি তৈরি ও বাজারজাত করবে, যা সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে থাকবে।

অন্যদিকে ২০২০-এর তুলনায় ইউরোপে ইভি বিক্রি ১০ দশমিক ৬ গুণ বেড়ে ৮৫ লাখ ১০ হাজার ইউনিটে দাঁড়াবে। কারণ স্থানীয় গাড়ি নির্মাতারা নতুন নতুন প্রস্তাব ও সুযোগ দেবে ক্রেতাদের জন্য। সুইডেনভিত্তিক ভলভো কারস গ্রুপ জানিয়েছে, ২০৩০ সালের পর তারা কেবল বৈদ্যুতিক গাড়িই বিক্রি করবে। পাশাপাশি জাগুয়ার ও ল্যান্ড রোভারও পরিকল্পনা করছে যে, ২০২৫ সালের পর কেবল বিলাসবহুল বৈদ্যুতিক গাড়িই বিক্রি করা হবে।

এ বিষয়ে নতুন পরিকল্পনা প্রকাশ করেছে টয়োটা মোটর করপোরেশন। তারা বলছে, ২০৩০ সাল নাগাদ বৈদ্যুতিক ও হাইব্রিড গাড়ির ব্যাটারিতে তারা ১ হাজার ৪০০ কোটি ডলার বিনিয়োগ করবে। পাশাপাশি ব্যাটারির উৎপাদনও বাড়ানো হবে।

ফলে এটা পরিষ্কার যে, ২০৩৫ সালের পর বিশ্বে জ্বালানিনির্ভর নয়, বিদ্যুচ্চালিত গাড়ির ব্যবহার বাড়বে। এতে কার্বন নিঃসরণ যেমন কমে আসবে তেমনি পরিবেশেও এক ধরনের ভারসাম্য তৈরি হবে।
0 Share Comment
Deshi Group
13 September 2021, 23:33

নিম্নচাপের প্রভাবে বাড়বে বৃষ্টি, সমুদ্রে ৩ নম্বর সর্তকতা

নিম্নচাপের প্রভাবে বাড়বে বৃষ্টি, সমুদ্রে ৩ নম্বর সর্তকতা
উ্ত্তরপশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন মধ্য বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত লঘুচাপটি পশ্চিম-উত্তর পশ্চিম দিকে অগ্রসর ও ঘণীভূত হয়ে প্রথমে নিম্নচাপ এবং পরে গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে।

এটি বর্তমানে উত্তরপশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন উড়িষ্যা উপকূল এলাকায় অবস্থান করছে। যা আরও পশ্চিম/উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে। মৌসুমী বায়ুর অক্ষের বর্ধিতাংশ রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ, উত্তরপ্রদেশ, বিহার, গভীর নিম্নচাপের কেন্দ্রস্থল, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেম দক্ষিণাঞ্চল হয়ে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, মৌসুমী বায়ু বাংলাদেশের উপর সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরের অন্যত্র প্রবল অবস্থায় রয়েছে। এজন্য চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে তিন নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।
আজ সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়, খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় এবং রংপুর, রাজশাহী ও ময়মনসিংহ বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে।

সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা (১-২) ডিগ্রি সেলসিয়াস হ্রাস পেতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা সামান্য হ্রাস পেতে পারে। আগমী ৭২ ঘণ্টায় বৃষ্টিপাতের প্রবণতা অব্যাহত থাকতে পারে।
0 Share Comment
Deshi Group
13 September 2021, 23:31

দুই ওয়েব ফিল্মে নওশাবা

দুই ওয়েব ফিল্মে নওশাবা
লকডাউনের পরেই একে একে দুটি ওয়েব ফিল্মের শুটিং শেষ করলেন অভিনেত্রী কাজী নওশাবা আহমেদ। নির্মাতা আরিফ খানের ‘দোলাচল’ ও রাশেদ রাহার ‘ডোম’ শিরোনামের একটি ওয়েব ফিল্মে দেখা যাবে তাকে। দুটি কাজ নিয়েই অভিনেত্রী বেশ উচ্ছ্বসিত। তিনি বলেন, ‘অনেক দিন ভালো কাজের অপেক্ষায় ছিলাম। চলতি বছরে সেই সুযোগগুলো পাচ্ছি। নির্মাতারা আমাকে নিয়ে নানা চরিত্রে কাজ করছেন। এ দুটি ওয়েব ফিল্মেও আমি নতুন চরিত্র নিয়ে দর্শকের সামনে আসবো।

এই গ্ল্যামারকন্যা ক্যারিয়ারের নতুন ইনিংসে ওয়েব ফিল্ম ‘ব্যাচ-২০০৩’তে বেশ আলোচনায় আসেন।
পরবর্তীতে নির্মাতা অনন্য মামুনের ‘কসাই’ ওয়েব ফিল্মেও দর্শকদের মুগ্ধ করেন। তারই ধারাবাহিকতায় বর্তমানে নিয়মিত ওটিটিতে কাজ করছেন তিনি। ওটিটির বাইরে নওশাবার হাতে ৩টি সিনেমা আছে। এগুলো হলো- অনন্য মামুনের পরিচালনায় ‘অমানুষ’, বন্ধন বিশ্বাসের ‘ছায়াবৃক্ষ’ এবং সাইফ চন্দনের ‘পোস্টার’।
‘ঢাকা অ্যাটাক’ চলচ্চিত্রের মধ্য দিয়ে সিনেমার দর্শকের কাছে দারুণ প্রশংসিত হন এই মডেল-অভিনেত্রী। বর্তমান ব্যস্ততা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘ওয়েবের কাজের পাশাপাশি সিনেমাগুলোর শিডিউল দেয়া আছে। আমি বরাবরই কাজের মধ্যে ডুবে থাকতে চাই। সত্যি বলতে কী আমি কাজ পাগল মানুষ । তাই সব সময় ভালো কাজের অপেক্ষায় থাকি।’
0 Share Comment
Deshi Group
13 September 2021, 23:29

দেশের সব নিম্ন মাধ্যমিক, মাধ্যমিক ও
উচ্চমাধ্যমিক স্তরের বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পর্ষদ ও
ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠনের অনুমতি দিয়েছে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড।
করোনাভাইরাস
মহামারীর কারণে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে গত বছরের ১৮ মার্চ থেকে
দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করায় বোর্ডের আওতাধীন শিক্ষা
প্রতিষ্ঠানে নির্বাচন কার্যক্রম বন্ধ করা হয়েছিল।
ভাইরাস সংক্রমণের হার কমায় দেড় বছর পর গতকাল (১২ সেপ্টেম্বর) রোববার স্কুল ও কলেজ খুলে দিয়েছে সরকার।
এরপরই ঢাকা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নেহাল আহমেদ স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে নির্বাচন অনুষ্ঠানের অনুমতির কথা জানানো হল।
চিঠিতে বলা হয়, “বর্তমানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চালু হওয়ায় গভর্নিং বডি এবং ম্যানেজিং কমিটি গঠন করার জন্য অনুরোধ করা হল।”
গতকাল রোববার এ চিঠি ঢাকা বোর্ডের সব বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধানদের পাঠানো হয়েছে।

0 Share Comment
Deshi Group
13 September 2021, 23:28

নতুন ১১ প্রজন্মের গেমিং ল্যাপটপ লাইনআপ উন্মোচন করল এমএসআই

নতুন ১১ প্রজন্মের গেমিং ল্যাপটপ লাইনআপ উন্মোচন করল এমএসআই
বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ব্যবসা, নকশা ও গেমিং প্রযুক্তি নির্মাতা এমএসআই নতুন ল্যাপটপ লাইনআপের ঘোষনা দিয়েছে। দেশের বাজারে এখন পাওয়া যাচ্ছে ১১তম প্রজন্মের ইনটেল কোর এইচ সিরিজ প্রসেসর ও এনভিডিয়া জিফোর্স আরটিএক্স ৩০৮০ ল্যাপটপ জিপিইউ সমৃদ্ধ পুরস্কার বিজয়ী এমএসআই ল্যাপটপ।

এমএসআইয়ের নতুন এই ল্যাপটপ হালনাগাদ ট্রেনডের সংগে দুর্দান্ত পারফরমেন্স দিতে সক্ষম। গেমার ও ক্রিয়েটরদের জন্য দারুন এক সংযোজন এমএসআইয়ের নতুন সিরিজের এ ল্যাপটপ।

আগের মডেলের চেয়ে নতুন মডেলে ৩০ শতাংশ পারফরমেন্স হালনাগাদ হয়েছে। এতে যুক্ত হয়েছে হাই স্পিড কম্বো পিসিআইই জেন ৪, থান্ডারবোল্ট ৪, ওয়াইফাই ৬ ই। গেমিং সিরিজগুলোতে এসেছে ডিসক্রিট গ্রাফিকস মোড নামের ফিচার যাতে দুর্দান্ত মানের গ্রাফিক পারফরমেন্স পাওয়া যায়।

এমএসআই তাদের গেমিং সিরিজে হালনাগাদ হিসেবে জিই রেইডার, জিপি লিওপার্ডও জিএস স্টেলথ ল্যাপটপ এনেছে।

এমএসআই নতুন গেমিং ল্যাপটপ শুরু হয়েছে শক্তিশালী জিই রেইডার সিরিজ হালনাগাদ দিয়ে। জিই ৭৬ ও জিই৬৬ রেইডার মডেলে ওয়াইফাই ৬ ই, এনভিডিয়া জিফোর্স আরটিএক্স ৩০৮০ ল্যাপটপ জিপিইউ এর কারনে গেমিং পারফরমেন্স পাওয়া যায় দারুন। ৩৬০ হার্জের ওপরে ডিপপ্লে বা কিউএইচডি ২৪০ হার্জ গেমিং স্পিড বাড়িয়ে দেয় অন্যদিকে এমএসআই কুলার বুস্ট ৫ প্রযুক্তি সিস্টেমকে বাধাহীন চলতে সাহায্য করে। জিপি লিওপার্ড সিরিজেও যুক্ত হয়েছে এনভিডিয়া হালনাগাদ জিপিইউ ও ১১ প্রজন্মের ইনটেল কোর আই ৭ প্রসেসর।
পুরস্কার জয়ী স্টেলথ সিরিজে হালকা ল্যাপটপেও শক্তিশালী গেমিং সক্ষমতা যুক্ত হয়েছে। জিএস ৭৬ স্টেলথে এখন উন্নত ভিজুয়াল পারফরমেন্সের জন্য কিউএইচডি ২৪০ হার্জের নতুন প্যানেল রয়েছে।

পালস জিএল৭৬ ও ৬৬ মডেলগুলো আরও শক্তিশালী হয়েছে। এতে এনভিডিয়া জিফোর্স আরটিএক্স ৩০৬০ জিপিইউ ও নতুন নকশার হিটপাইপ ও এমএসআই থার্মাল গ্রিজ ব্যবহৃত হয়েছে। এতে ল্যাপটপে বায়ু চলাচল করে বেশি।

সোর্ড ১৭ ও ১৫, কাতানা জিএফ ৭৬ ও ৬৬ মডেলেও দুর্দান্ত গেমিং অভিজ্ঞতা মিলবে। এনভিডিয়া জিফোর্স আরটিএক্স ৩০৬০ জিপিইউ দ্বারা চালিত এবং স্বাধীন নম্বর প্যাড সম্বলিত। সোর্ড এবং কাতানা জিএফ ল্যাপটপগুলিতে এন্ট্রি লেভেলের ল্যাপটপের চেয়েও বাড়তি সুবিধা মিলবে। ভার্চুয়াল জগতে দীর্ঘস্থায়ী যুদ্ধের জন্য তারা আপনার প্রথম অংশীদার।

সৃজনশীল ও ব্যবসায়ী বাজার লক্ষ্য করে বাজারে আনা এমএসআইয়ের নতুন এই ল্যাপটপ লাইনআপ ক্রেতাদের মধ্যে দারুন সাড়া ফেলবে বলে আশাবাদী কতৃপক্ষ।

সৃজনশীল এবং ব্যবসায়িক বাজারে নতুন করে মনোযোগ দেওয়ার সাথে সাথে, এমএসআই এর নতুন ল্যাপটপগুলো সব ধরণের **সৃজনশীল কাজের প্রতি ব্র্যান্ডের উত্সর্গকে প্রতিফলিত করে। এমএসআই ল্যাপটপে পারফরমেন্সের পাশাপাশি গ্রাহকের পছন্দের নতুন নকশাও বিবেচনায় রেখেছে। রাতের গেম খেলা বা দিনের অফিসের কাজ বা যেকোনো জায়গা থেকে সৃজনশীল কাজের সুবিধার কথা মাথায় রেখে এমএসআই তাদের নতুন ল্যাপটপ লাইনআপ বাজারে এনেছে।

১১ প্রজন্মের নতুন সব ল্যাপটপ এখন দেশের বাজারে পাওয়া যাবে। এ সম্পর্কে বিস্তারিত এমএসআই স্টোরে জানা যাবে।
0 Share Comment
Deshi Group
13 September 2021, 23:27

এলপিজির দাম বোতল প্রতি ৬৫ টাকা দাম বাড়ানোর সুপারিশ

এলপিজির দাম বোতল প্রতি ৬৫ টাকা দাম বাড়ানোর সুপারিশ
অবশেষে এলপিজির দাম নির্ধারণে গণশুনানি করেছে জ্বালানীর দাম নির্ধারণী সংস্থা বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)। এ সময় ব্যাবসয়ীরা এলপিজির ‘যুক্তিসঙ্গত দাম’ নির্ধারণ করা না হলে ব্যবসা বন্ধের আশঙ্কা প্রকাশ করেন। তারা দাম বাড়ানোর পক্ষে যুক্তি তুলে ধরেছে। বিইআরসির কারিগরি মূল্যায়ন কমিটি এলপিজির বোতল প্রতি ৬৫ টাকা দাম বাড়ানোর সুপারিশ করেছে।

অন্যদিকে এলপিজির দাম কার্যকরের বিষয়টি আদালতের মাধ্যমে নিষ্পত্তি করার দাবি জানিয়েছেন কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) এর জ্বালানি উপদেষ্টা এবং জ্বালানি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক শামসুল আলম। শুনানী অনুষ্ঠিত হলেও বিইআরসি দাম নির্ধারণ করেনি। আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিইআরসি আরও মতামত নেবে। পরবর্তীতে দামের বিষয়ে আদেশ দেওয়া হবে বলে জানায়।

সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর ইস্কাটনে বিয়াম ফাউন্ডেশনের শহীদ এ কে এম শামসুল হক খান মেমোরিয়াল হলে এই গণশুনানী অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ১১টায় শুরু হয়ে বিকাল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত গণশুনানী চলে।

শুনানিতে বেসরকারি এলপিজি কোম্পানিগুলোর পক্ষে বক্তব্য রাখেন বেক্সিমকোর চিফ কমার্শিয়াল অফিসার মুনতাসির আলম, বসুন্ধরা গ্রুপের সেলস হেড জাকারিয়া জালাল, ওমেরার চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার শামসুল হক আহমেদ, পেট্রোম্যাক্সের পরিচালক নাফিস কামাল, টোটাল গ্যাসের মনজুর মোর্শেদ।

তারা বলেন, সৌদি সিপির দাম সমন্বয় করে কমিশন এলপিজির যে দাম নির্ধারণ করেছে সেই বিষয়ে কিছুই বলার নেই। কিন্তু এলপিজি আমদানির পর দেশে পরিবহন, বোতলজাতকরণ, মজুতকরণ এবং পরিচালন ব্যয়গুলোর যে চার্জ কমিশন নির্ধারণ করেছে তা অনেক কম। একারনে ব্যবসায়ীরা লোকসানে পড়ছে। এই লোকসান বড় কোম্পানীগুলো সামাল দিতে পারলেও ছোট কোম্পানিগুলো প্রায় বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

এলপিজি মজুত করা ও বোতলজাত করার চার্জের ক্ষেত্রে কমিশন প্রতি কেজি ১১ টাকা ৯৩ টাকা হারে ১২ কেজির জন্য চার্জ মাত্র ১৪৩ টাকা নির্ধারণ করেছে-এটা অযৌক্তিক। এতে অপারেটররা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। একইভাবে ডিস্ট্রিবিউটরের ব্যয় ধরা হয়েছে প্রতি কেজি ২ টাকা হারে ১২ কেজির জন্য ২৪ টাকা এবং খুচরা বিক্রেতার ব্যয় ধরা হয়েছে প্রতি কেজি ২ টাকা ২৫ পয়সা হারে ২৭ টাকা- যা প্রকৃত ব্যয়ের চেয়ে অনেক কম। প্রকৃতপক্ষে এই ব্যয় যথাক্রমে ৫০+৮০= ১৩০ টাকা হওয়া প্রয়োজন। বিইআরসির কারিগরি মূল্যায়ন কমিটি এলপি গ্যাসের ১২ কেজি বোতলের দাম ৬৪ দশমিক ৭৬ টাকা বাড়ানোর জন্য সুপারিশ করেছে।

বাজারে এখন ১২ কেজি এলপিজি বোতলের দাম ১ হাজার ৩৩ টাকা নির্ধারিত করেছে বিইআরসি। সেখানে কারিগরি কমিটি তা বাড়িয়ে ১ হাজার ৯৭ টাকা ৭৬ পয়সা করার সুপারিশ করেছে। বিইআরসির কারিগরি মূল্যায়ন কমিটির সদস্য সচিব কামরুজ্জামান শুনানিতে বলেন, সৌদি সিপি অনুযায়ী সেপ্টেম্বর মাসের এলপিজির সরবরাহ ব্যয় ৯১ দশমিক ৪৮ টাকা প্রতি কেজি হিসেবে ১২ কেজির বোতলের দাম ১ হাজার ৯৭ টাকা ৭৬ পয়সা করার সুপারিশ করা হয়েছে। তবে বিইআরসি এলপিজি বোতলজাতকরণ এবং মজুদকরণের চার্জ অপরিবর্তীত রাখতে চায়। কারিগরি কমিটি পরিবেশক এবং খুচরা বিক্রেতার কমিশন বাড়ানোর পক্ষে মত দেয়।

এদিকে এলপিজির দাম নির্ধারনে গণশুনানীর এবং দাম বাড়াতে ব্যবসায়ীদের প্রস্তাবের বিরোধিতা করে কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) এর জ্বালানি উপদেষ্টা এবং জ্বালানি বিশেষজ্ঞ শামসুল আলম বলেন, দাম কার্যকরের বিষয়টি আদালতের মাধ্যমে নিষ্পত্তি হলে ভোক্তা ও ব্যবসায়ী উভয় পক্ষই উপকৃত হবে। তিনি বলেন, ব্যবসায়ীদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এই শুনানি অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মানুষ আগেও উপকার পায়নি, এবারো উপকার হবে বলে মনে করি না। ঘোষিত দামে এলপিজি বিক্রিতে বিইআরসি কোম্পানিগুলোকে বাধ্য করতে পারে, সেই আইন আছে। কমিশনের আইন দিয়েই দামের কার্যকারিতা বাস্তবায়ন করা সম্ভব। কিন্তু কমিশন তা করতে পারছে না। কমিশনের নির্দেশ ব্যবসায়ীরাও মানছে না। এখন দাম সমন্বয়ের মাধ্যমে ব্যবসায়ীদের দাবি পূরণ হবে। বিইআরসি আদেশ দিয়ে যাচ্ছে, কিন্তু বাজারে আদেশ কার্যকর হচ্ছে না। আমি মনে করি এখন দামের আদেশ আদালতের মাধ্যমে কার্যকর হওয়া ভালো। এতে মানুষ ও ব্যাবসায়ী উভয়েই উপকৃত হবে।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে প্রথমবারের মতো এলপিজির দাম নিয়ে গণশুনানি হয়। গত ১২ এপ্রিল প্রথমবারের মতো এলপিজির দাম নির্ধারণ করে দেয় বিইআরসি। ব্যবসায়ীদের আবেদনের মুখে মাত্র ৭ মাসের মাথায় সোমবার আবারও গণশুনানী অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে দুই দফায় তারিখ দিয়েও প্রথমবার লকডাউন এবং পরবর্তীতে হাইকোর্টের আদেশের কারণে গণশুনানী স্থগিত হয়।
0 Share Comment
Deshi Group
13 September 2021, 23:09

বিকাশ লিমিটেড সম্প্রতি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি অঞ্চলভিত্তিক লোকবল নিয়োগ দেবে। আগ্রহীরা অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন।


প্রতিষ্ঠানের নাম- বিকাশ লিমিটেড

পদের নাম- রিজিওনাল ম্যানেজার


পদের সংখ্যা- ১টি


কাজের ধরন- পূর্ণকালীন

কর্মস্থল- বাংলাদেশের যে কোনো স্থানে


আবেদন যোগ্যতা


১। যেকোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিবিএ পাস।


২। সংশ্লিষ্ট কাজে কমপক্ষে ৮-১০ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।


৩। সেলস ও ডিস্ট্রিবিউশনের কাজে অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।


৪। টেলিকমিউনিকেশন, মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিজ, ম্যানুফেকচারিং ও ব্যাংকিং বিষয়ক কার্যক্রম সম্পর্কে সম্যক ধারণা থাকতে হবে।


আবেদন যেভাবে


আগ্রহীরা অনলাইনে বিডি জবসের মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন ।


বেতন ও সুযোগ সুবিধা


১। বেতন আলোচনা সাপেক্ষে


২। কোম্পানির নীতিমালা অনুসারে অন্যান্য সুবিধা প্রদান করা হবে।


আবেদনের শেষ তারিখ


১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১

0 Share Comment
Deshi Group
13 September 2021, 23:08

ট্রেইনি কনস্টেবল পদে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ। জেলা
অনুযায়ী শূন্যপদের বিপরীতে ওই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হলেও জানা গেছে
এবার সব জেলা মিলিয়ে প্রায় ১০ হাজার কনস্টেবল নিয়োগ দেওয়া হবে।


নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, এসএসসি পাস করা ১৮ থেকে ২০ বছরের মধ্যে যে
কোনো নারী ও পুরুষ আবেদন করতে পারবেন। তবে ২০২০ সালের ২৫ মার্চ যারা
বয়সসীমার মধ্যে পৌঁছেছেন তারাও এবার সুযোগ পাচ্ছেন আবেদনের। এক্ষেত্রে
মুক্তিযোদ্ধা ও অন্যান্য কোটা অনুসরণ করা হবে।

আগামী ৭ অক্টোবরের মধ্যে আবেদন জমা দিতে হবে। সকাল ১০টা থেকে চলতি বছরের
৭ অক্টোবর বিকেল ৫টার মধ্যে আবেদন করা যাবে। police.teletalk.com.bd এ লগ
ইন করে আবেদন করা যাবে। মাত্র ৩০ টাকা (অফেরতযোগ্য) খরচে এই নিয়োগে আবেদনের
সুযোগ মিলছে।


আবেদনের যোগ্যতায় জিপিএ-৫ এরমধ্যে কমপক্ষে ২.৫ থাকতে হবে। হতে হবে
বাংলাদেশি। তবে বিবাহিত বা তালাক প্রাপ্ত কেউ এতে আবেদন করতে পারবেন না।


এবার নিয়োগের ক্ষেত্রে উচ্চতা ও বুকের মাপে কিছুটা পরিবর্তন আনা হয়েছে।
পুরুষদের কনস্টেবল হওয়ার জন্য উচ্চতা কমপক্ষে ৫ ফুট ৬ ইঞ্চি থাকতে হবে।
নারীদের জন্য ৫ ফুট ২ ইঞ্চির স্থলে ৫ ফুট ৪ ইঞ্চি করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, বর্তমানে বাংলাদেশ পুলিশে ২ লাখ ১০ হাজারের মতো ফোর্স রয়েছে।
২০১৯ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ধাপে ধাপে আরও ৫০ হাজার পুলিশ নিয়োগের
নির্দেশনা দেন। তবে করোনার কারণে ২০২০ সালে পুলিশের নিয়োগ প্রক্রিয়া বন্ধ
ছিল।


এবার নতুন নিয়মে কনস্টেবল নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। সাত ধাপে এই
নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে কোনো ধাপে অকৃতকার্য হলে ওই প্রার্থী
আর কনস্টেবল নিয়োগ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারবেন না।


নতুন নিয়মের পরীক্ষার ধাপগুলো হচ্ছে প্রিলিমিনারি স্ক্রিনিং, শারীরিক
মাপ ও ফিজিক্যাল অ্যান্ডুরেন্স টেস্ট, লিখিত পরীক্ষা, মনস্তাত্ত্বিক ও
মৌখিক পরীক্ষা, প্রাথমিক নির্বাচন, পুলিশ ভেরিফিকেশন ও স্বাস্থ্য পরীক্ষা
এবং চূড়ান্তভাবে প্রশিক্ষণে অন্তর্ভূক্তকরণ।


আবেদনের পর আবেদনকারীর মোবাইল নম্বরে একটি এসএমএস করা হবে। এসএমএসে
নিয়োগ সংক্রান্ত ওয়েব পোর্টালে লগইন করার জন্য ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড দেওয়া
হবে। সেই পোর্টালে লগইন করে আবেদনকারীকে নিয়োগ পরীক্ষার প্রবেশপত্র নিতে
হবে।


সেই প্রবেশপত্র প্রিন্ট করে নিয়োগ পরীক্ষার প্রতিটি ধাপে অংশগ্রহণ করতে
হবে। নিয়োগ পরীক্ষা শুরুর দিন প্রার্থীদের পুলিশের নির্ধারিত স্কেলে বুকের
মাপ ও ওজন-উচ্চতা নেওয়া হবে। এরপর প্রার্থীর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র যাচাই করে
তাকে পরবর্তী পরীক্ষার জন্য ‘যোগ্য’ হিসেবে বিবেচনা করে তার ফরমে একটি সিল
দেওয়া হবে।


পরবর্তী ধাপে অনুষ্ঠিত হবে শারীরিক সক্ষমতা পরীক্ষা। এই পরীক্ষার আগে
প্রার্থীকে ‘ইনডেমনিটির ঘোষণাপত্র’ নামে একটি ফরম পূরণ করতে হবে। ফরমে ওই
প্রার্থী ‘শারীরিক ও মানসিকভাবে সুস্থ’ আছে বলে ঘোষণা দিয়ে স্বাক্ষর করবেন।


শারীরিক সক্ষমতা যাচাইয়ের জন্য ধাপে ধাপে সাতটি ইভেন্টে অংশ গ্রহণ করতে
হবে। সেগুলো হচ্ছে- দৌড়, পুশ আপ, লং জাম্প, হাই জাম্প, ড্র্যাগিং ও রোপ
ক্লাইমিং। এই ধাপের কোনো একটিতে অকৃতকার্য হলে পরবর্তী ধাপের পরীক্ষায় অংশ
নেওয়া যাবে না এবং সেখানেই তার পুলিশ হওয়ার স্বপ্ন শেষ হয়ে যাবে।


শারীরিক সক্ষমতা যাচাইয়ের ষষ্ঠ ধাপে রয়েছে ড্র্যাগিং পরীক্ষা। এই ধাপে
পুরুষ প্রার্থীদের ১৫০ পাউন্ডের টায়ারকে টেনে ৩০ ফুট দূরত্ব ও নারী
প্রার্থীদের ১১০ পাউন্ড ওজনের টায়ার ২০ ফুট দূরত্বে আনতে হবে। এছাড়াও রোপ
ক্লাইমিং পরীক্ষায় পুরুষদের ১২ ফিট এবং নারীদের ৮ ফিট দড়ি বেয়ে ওপরে উঠতে
হবে।


শারীরিক সক্ষমতা যাচাই পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের সব ডকুমেন্ট নিয়ে লিখিত
পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। লিখিত পরীক্ষায় বাংলা, ইংরেজি, সাধারণ গণিত ও
সাধারণ বিজ্ঞান বিষয়ে ৪৫ নম্বরের প্রশ্ন থাকবে। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের
১৫ নম্বরের মনস্তাত্ত্বিক ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। এরপর লিখিত,
মৌখিক ও মনস্তাত্ত্বিক পরীক্ষার পর উত্তীর্ণদের পুলিশ ভেরিফিকেশন ও
স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হবে। সব পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের চূড়ান্তভাবে
প্রশিক্ষণে অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

0 Share Comment
Deshi Group
13 September 2021, 23:07

বসবাসের অনুমতি বা ইকামার মেয়াদ
বিনামূল্যে আগামী ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত বাড়িয়েছে সৌদি আরব। ভিজিট, এক্সিট ও
রি-এন্ট্রি ভিসার ক্ষেত্রেও একই সুবিধা দেওয়া হয়েছে। সৌদি কর্তৃপক্ষ
জানিয়েছে, বাদশাহ সালমানের নির্দেশে এ ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে।


আরব নিউজের প্রতিবেদনে আরও জানানো হয়েছে,
এটি সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয়ভাবে হবে, মেয়াদ বাড়ানোর জন্য কাউকে পাসপোর্ট
অধিদপ্তরে যেতে হবে না। সৌদির জাতীয় তথ্য কেন্দ্র এ কাজে সহায়তা করছে ।

এতে প্রথমত, করোনার কারণে ৩০ নভেম্বর
পর্যন্ত প্রবেশাধিকার বন্ধ থাকা দেশগুলোতে অবস্থানরত প্রবাসীদের ইকামা,
এক্সিট ও রি-এন্ট্রি ভিসার মেয়াদ বাড়বে। দ্বিতীয়ত, সেসব দেশে থাকা
ভ্রমণকারীদের ভিজিট ভিসার মেয়াদ বাড়ানো হবে।

0 Share Comment
Deshi Group
13 September 2021, 23:07

ভিকটিমের ডিএনএ ও পোস্টমর্টেম রিপোর্টে মামলায় নতুন মোড়

ভিকটিমের ডিএনএ ও পোস্টমর্টেম রিপোর্টে মামলায় নতুন মোড়
বহুল আলোচিত কলেজছাত্রী মোসারাত জাহান মুনিয়ার (২২) রহস্যজনক মৃত্যুর পর ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে উঠে আসে ২-৩ সপ্তাহের অন্তঃসত্ত্বা থাকার তথ্য। ডিএনএ পরীক্ষায় ভিকটিমের পরনের সব কাপড়ে মেলে পুরুষের ডিএনএ। তাছাড়া ডাক্তারি পরীক্ষায় মৃত্যুর পূর্বে মুনিয়ার সঙ্গে যৌন সম্পর্ক অর্থাৎ মৃত্যুর পূর্বে ধর্ষিত হওয়ার কথাও বলা হয়।

এমন ভয়ঙ্কর তথ্য-প্রমাণ সামনে আসার ফলে নতুন করে তদন্তে যাওয়া ধর্ষণ এবং হত্যা মামলাটি নতুন মোড় নেয় ও সমৃদ্ধ হয়েছে বলে মনে করেন বাদীপক্ষের অন্যতম প্রধান আইনজীবী মাসুদ সালাউদ্দিন।

তিনি বলেন, মুনিয়ার প্রেমিক ও মামলার প্রধান আসামি বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সায়েম সোবহান আনভীরসহ আটজনের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন ট্রাইব্যুনালে যে মামলাটি হয়েছে, মূলত এটি নতুন মামলা নয়। গুলশান থানার পূর্বের মামলাটিই এখতিয়ারভুক্ত সংশ্লিষ্ট ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে প্রতিস্থাপিত হয়েছে। ঘটনার পর বাদী এ মামলা দিতে চাইলেও ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে তখন এই ধারায় মামলা নেয়নি পুলিশ।
nagad

এদিকে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে গুলশান থানায় রেকর্ড হওয়া মুনিয়াকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে দায়ের হওয়া মামলাটির তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। চাঞ্চল্যকর এ মামলার তদন্তভার পেয়েছেন পিবিআইয়ের পুলিশ পরিদর্শক গোলাম মোক্তার আশরাফ উদ্দিন। তিনি গতকাল রবিবার বিকালে গুলশানের সেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন বলে জানা গেছে। আলোচিত এ মামলাটির সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্তের জন্য প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

অন্যদিকে কয়েকদিন ধরে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন মামলার বাদী ও নিহত মুনিয়ার বড় বোন নুসরাত জাহান তানিয়া ও তার স্বামী মিজানুর রহমান। বিষয়টি জানিয়ে গত শনিবার কুমিল্লা কোতোয়ালি মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি-নম্বর-৬৭৭) করেছেন মিজান।

এতে তিনি উল্লেখ করেছেন, মুনিয়াকে হত্যার ঘটনায় তার স্ত্রী নুসরাত গত ৬ সেপ্টেম্বর ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৮ এ বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি সায়েম সোবহান আনভীরসহ আটজনের বিরুদ্ধে মামলা (১০৮/২১) করেন। এই মামলার পর আসামিরাসহ মহি উদ্দিন মোল্লা (৫০), সাং চাঁনপুরসহ আরো অজ্ঞাতনামা ৬-৭ জন সহযোগী তাকে (মিজান) তার বাসা এলাকায় খোঁজাখুঁজি করছে। যদিও তারা ব্যাংকের লোক হিসেবে মিথ্যা পরিচয় দেয়। আশঙ্কা প্রকাশ করছি, মামলার আসামি পক্ষ আমাদের পরিবারের সদস্যদের কিংবা সাক্ষীদের ক্ষতিসাধন করতে পারে।

দেশজুড়ে আলোচিত এ নতুন মামলা প্রসঙ্গে মুনিয়া হত্যা মামলা বাদী তার বোন নুসরাত জাহান তানিয়ার অন্যতম প্রধান আইনজীবী মাসুদ সালাউদ্দিন বলেন, এই মামলাটির তথ্য-প্রমাণের কোনো অভাব নেই। ময়নাতদন্ত ও ডিএনএ পরীক্ষায় মুনিয়া অন্তঃসত্ত্বা, তার পোশাকে পুরুষের ডিএনএ পাওয়া এমনকি মৃত্যুর পূর্বে ধর্ষিত হওয়ার চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়ার পর প্রধান সন্দেহভাজন আসামি আনভীরের ডিএনএ পরীক্ষা করাই অত্যাবশ্যক ছিল। সেটি না করে আগের তদন্ত কর্মকর্তা দায়িত্বহীনতা ও পক্ষপাতদুষ্ট আচরণ করছেন বলে মনে করেন এই আইনজীবী।

একই ঘটনায় একাধিক মামলা প্রসঙ্গে অ্যাডভোকেট মাসুদ সালাউদ্দিন বলেন, মুনিয়ার মৃত্যুর পর তার বোন যেভাবে গুলশান থানায় অভিযোগ দিয়েছেন, সে অনুসারে মামলা নেয়নি পুলিশ। এটি মূলত সংশ্লিষ্ট ট্রাইব্যুনালের এখতিয়ারভুক্ত মামলা। পুলিশের উচিত ছিল, সেভাবে মামলা গ্রহণ করে নারী ও শিশু ট্রাইব্যুনালে পাঠানো।

তিনি বলেন, যাহোক নতুন করে আবেদনের ফলে মূলত প্রথম এজাহার দেয়া মামলাটিই প্রতিস্থাপিত হয়েছে। এ ছাড়া মুনিয়ার ভাই আশিকুর রহমান সবুজ যে হত্যা মামলার আবেদন করেছিলেন, সেটি মামলা হিসেবে রেকর্ড হয়নি। একটি মামলা চলমান থাকায় সেটি স্থগিত রেখেছিলেন আদালত।

ফলে মুনিয়া হত্যার ঘটনায় তিনটি নয়, মাত্র একটি মামলাই রয়েছে, এ নিয়ে বিভ্রান্তির অবকাশ নেই। আসামি বিচারিক প্রক্রিয়ায় খালাস পাইনি এটি মনে রাখতে হবে- যোগ করেন এই আইনজীবী।

ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৮ আদালতে মুনিয়ার বড় বোন নুসরাত জাহান তানিয়া বাদী হয়ে গত সোমবার এই মামলা করেন। ওই আদালতের বিচারক জেলা ও দায়রা জজ বেগম মাফরোজা পারভীন মামলাটি গ্রহণ করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলে নির্দেশ দেন। এদিন দুপুরে নুসরাতের জবানবন্দি রেকর্ড করেন আদালত।

ধর্ষণের পর হত্যার এই চাঞ্চল্যকর মামলায় প্রধান আসামি বসুন্ধরার এমডি সায়েম সোবহান আনভীর (৪২)। পাশাপাশি তার বাবা বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান (৭০), মা আফরোজা সোবহান (৬০), আনভীরের স্ত্রী সাবরিনা (৪০), হুইপপুত্র শারুনের সাবেক স্ত্রী সাইফা রহমান মিম (৩৫), কথিত মডেল ফারিয়া মাহবুব পিয়াসা, পিয়াসার বান্ধবী ও ঘটনাস্থল গুলশানের ফ্ল্যাট মালিকের স্ত্রী শারমিন (৪০) ও তার স্বামী ইব্রাহিম আহমেদ রিপনকে (৪৭) আসামি করা হয়েছে।

আদালতের নির্দেশে গত মঙ্গলবার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯(১) (২)/৩০ ধারা এবং ৩০২/৩৪ ধারার মামলাটি (নম্বর-৫) রেকর্ড হয়। তদন্তের জন্য ওই দিনই পাঠানো হয় পিবিআইতে।

গত ২৬ এপ্রিল রাতে গুলশানের একটি ফ্ল্যাট থেকে মোসারাত জাহান মুনিয়ার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। সেই রাতেই বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি আনভীরের বিরুদ্ধে গুলশান থানায় মামলা করেন ভিকটিমের বোন নুসরাত জাহান তানিয়া।

সেখানে বলা হয়, বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে সায়েম সোবহান আনভীর দীর্ঘদিন শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তুলেছিলেন মুনিয়ার সঙ্গে। ওই বাসায় তার নিয়মিত যাতায়াত ছিল। কিন্তু বিয়ে না করে তিনি উল্টো মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছিলেন মুনিয়াকে। নুসরাত দাবি করেন, তার বোনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে আনভীর।

তদন্ত শেষে গত ১৯ জুলাই আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়ে গুলশান থানা পুলিশ জানায়, আসামির আনভীরের সঙ্গে ঘটনার সম্পৃক্ততা না পাওয়ায় তাকে অব্যাহতি দেয়া হোক। এর বিরুদ্ধে আদালতে না-রাজি দেন বাদী নুসরাত। গত ১৮ আগস্ট পুলিশ প্রতিবেদন গ্রহণ করে ও বাদীর আবেদন খারিজ করে আসামিকে অব্যাহতি দেন ঢাকার সিএমএম আদালত।
0 Share Comment
Deshi Group
13 September 2021, 23:03

আগামী ১০-১২ নভেম্বরের মধ্যে যেকোনো দিন এসএসসি পরীক্ষা শুরু হতে পারে। এজন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে শিক্ষা বোর্ডগুলো।


এ বিষয়ে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

আন্তঃশিক্ষা সমন্বয়ক বোর্ড সূত্র
জানিয়েছে, চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষা আয়োজন করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া
হচ্ছে। প্রশ্নপত্র ছাপার কাজ শেষ হয়েছে। এ সপ্তাহে প্রশ্নপত্র জেলা পর্যায়ে
পাঠানো হবে।

যেহেতু ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে এইচএসসি
পরীক্ষার আয়োজন করা হবে, তাই আগামী ১০ থেকে ১২ নভেম্বরের যেকোনো দিন থেকে
এসএসসি পরীক্ষা শুরু করতে চায় শিক্ষা বোর্ডগুলো। উল্লেখিত সময়ের মধ্যে এ
পরীক্ষা শুরু করলে পরবর্তী এক মাসের মধ্যে এইচএসসি পরীক্ষা শুরুর প্রস্তুতি
নেওয়া সম্ভব হবে।

0 Share Comment
$
$