অনলাইন শপিং,ফ্রিল্যান্সিং ও অন্যান্য কাজ করার জন্য এই ওয়েবসাইটে একটি একাউন্ট থাকতে হবে। একাউন্ট খোলা মানেই টাকা দিতে হবে এমন না। ফ্রিল্যান্সার অথবা বায়ার, এর যে কোন একটি চয়েজ করে একাউন্ট তৈরি করতে হবে।অথবা শপিং সেকশনের যে কোন প্রোডাক্টের এ্যাড টু কার্ট বাটনে ক্লিক করেও আপনি একাউন্ট তৈরি করতে পারবেন।সাইনআপ করুন এবং কাজ পোষ্ট করুন। ফ্রিল্যান্সারগণ কাজ খুজুন ও বিড করুন।একাউন্ট তৈরি হলে আপনি আপনার দেয়া ইউজার আইডি ও পাসওর্য়াড ব্যবহার করে সাইটে লগইন করতে পারবেন। You must have an account on this website for online shopping, freelancing and other activities. Opening an account does not mean that you have to pay. Freelancer or buyer, you have to create an account by choosing one of them. Or you can create an account by clicking on the add to cart button of any product in the shopping section.Sign up and post work. Freelancers find work and bid. Once the account is created, you can login to the site using your given user ID and password.

We have 52 guests and no members online

National/International News Group

1844 posts found

National/International News Group
28 November 2021, 23:28

গরুর শিরা বসানো হলো শিশুর বুকে, লাগল মাত্র ২ টাকা

গরুর শিরা বসানো হলো শিশুর বুকে, লাগল মাত্র ২ টাকা


না, কল্পবিজ্ঞানের গল্প নয়। খাস ভারতের কলকাতার এক সরকারি হাসপাতালের ঘটনা। গরুর গলার শিরার সৌজন্যে নতুন জীবন পেল পাঁচ বছরের এক শিশু। কলকাতার এনআরএস মেডিক্যাল কলেজের কার্ডিওথোরাসিক সার্জারি বিভাগে এই প্রথম হার্টের ভালভ পাল্টানোর ‘রস অপারেশন’ হলো, বিনিময়ে চার্জ লাগল মাত্র দু’টাকা। পশ্চিমবঙ্গের কোনো সরকারি হাসপাতালের এহেন নজিরবিহীন কৃতিত্ব দেখে বিস্মিত স্বাস্থ্য ভবনও। কুর্নিশ, অভিনন্দনের বন্যা বইছে। যদিও এনআরএসের কার্ডিওথোরাসিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এখানে মূল ভূমিকা সদিচ্ছার। আমরা পারি। শুধু ইচ্ছেটা দরকার।
কী পেরেছেন ওরা? গরুর গলার শিরা কেটে বিশেষভাবে প্রস্তুত একটি শিরা পাঁচ বছরের এক শিশুকন্যার বুকে বসিয়ে তাকে জটিল হৃদরোগ থেকে মুক্তি দিয়েছেন। সেই তয়বা খাতুন এসেছিল মুর্শিদাবাদের কান্দির তেঁতুলিয়া থেকে। জন্মথেকে মেয়ের শ্বাসকষ্ট, একটু হাঁটলেই বুকে ব্যথা, বুকে হাত চেপে বসে পড়ে। মা চোখের পানি ফেলেন। একের পর এক ডাক্তার দেখিয়েও সুরাহা না মেলায় ওই শিশুকে বুকে নিয়ে মা ট্রেনে চড়ে চলে আসেন শিয়ালদহ স্টেশনে। একটু হেঁটেই এনআরএসের শিশু বিভাগের আউটডোর। টিকিট কেটে ভিড় ঠেলে যতক্ষণে তার দরজায় দাঁড়ালেন, মেয়ে নিস্তেজ হয়ে পড়েছে। ডাক্তার পরীক্ষা করে সটান পাঠিয়ে দিলেন কার্ডিওথোরাসিক সার্জারিতে, টিকিটে লিখলেন, ‘কনজেনিটাল হার্ট ডিজিজ’। সরকারি হাসপাতালে যেমন হয়। পরের সপ্তাহে ফের আউটডোর। টিকিট কেটে ফের চারতলা, ফের মেয়ের প্রবল শ্বাসকষ্ট। বাচ্চাটাকে দেখেই মনে হলো, যেকোনো সময় অঘটন ঘটতে পারে। হার্ট ফেলের সম্ভাবনা ব্যাপক। তাই সাথে সাথে ইকো কার্ডিওগ্রাফি করতে পাঠাই, বলছিলেন বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা: পরেশ বন্দ্যোপাধ্যায়।
তার কথায়, বাচ্চাটার হার্টের অ্যাওর্টিক ভালভে জন্ম থেকেই গ-গোল। তাই ভালভ পাল্টানো দরকার। কিন্তু শিশু বড় হলে নতুন ভালভকেও সমানতালে বড় হতে হবে। তাই করা হল রস অপারেশন। স্বাস্থ্য দফতরের শীর্ষকর্তারা জানাচ্ছেন, এ রাজ্যের সরকারি হাসপাতালে এর আগে এমন অস্ত্রোপচার হয়নি। সেই নিরিখে তয়বাই খুলে দিল দরজা। ১৫ নভেম্বর সে হাসপাতালে ভরতি হয়, ওজন ১৩ কেজি। পর দিন সকাল ১০টায় অস্ত্রোপচারের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। বিকেল সাড়ে ৪টা নাগাদ ফিরিয়ে আনা হয় আইটিইউ চেম্বারে। মাঝে একটা সময়ে ফুসফুস থামিয়ে কৃত্রিমভাবে রক্ত সঞ্চালন করানো হয়।
গরুর গলার শিরা কেটে বিশেষভাবে প্রস্তুত যে শিরা তয়বার বুকে বসানো হয়েছে, তার দৈর্ঘ্য প্রায় ২০০ মিলিমিটার, ব্যাস ১৪ মিলিমিটার। এই শিরা দিয়ে রক্ত সঞ্চালন সহজ হবে। পরেশবাবুর কথায়, ও যত বড় হবে, ফুসফুসও সমানভাবে বড় হবে। তাই একটু বড় শিরা বসানো হয়েছে। বাজারে এর দাম প্রায় দেড় লাখ টাকা। কিন্তু শিশুসাথী প্রকল্পে চিকিৎসার সব খরচ রাজ্য সরকার বহন করছে। স্বাস্থ্য ভবন সূত্রে খবর, তয়বা এখন সম্পূর্ণ বিপদ মুক্ত। সোমবার রাতে মায়ের কোলে চেপে সে হাসিমুখে বাড়ি ফিরে গিয়েছে। সূত্র : সংবাদ প্রতিদিন


0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 23:24

Omicron: ওমিক্রনের উপসর্গ কী, কতটা বিপজ্জনক?

Omicron: ওমিক্রনের উপসর্গ কী, কতটা বিপজ্জনক?
দক্ষিণ আফ্রিকায় শনাক্ত হওয়া করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনে (Omicron) আক্রান্তদের শরীরে বিশেষ কোনো উপসর্গ ছাড়াই মৃদু রোগ দেখা দিতে পারে। শনিবার দেশটির মেডিক্যাল সংস্থার চেয়ারম্যান অ্যাঞ্জেলিক কোয়েৎজি রুশ বার্তাসংস্থা স্পুটনিককে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এই তথ্য জানিয়েছেন।

শুক্রবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা দক্ষিণ আফ্রিকায় শনাক্ত করোনার নতুন প্রজাতিকে ‘উদ্বেগজনক ভ্যারিয়েন্ট’ হিসেবে ঘোষণা দেয়। সংস্থাটি বলেছে, করোনার নতুন ধরনটির স্পাইক প্রোটিনে ৩২ বার রূপ বদল ঘটেছে। সাধারণত ভাইরাসের এ ধরনের বারবার রূপ বদল সেটিকে আরও বেশি সংক্রামক এবং বিপজ্জনক করে তোলে।

গ্রিন বর্ণমালার ১৫ নম্বর অক্ষর অনুযায়ী বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই ভ্যারিয়েন্টকে ‘ওমিক্রন’ নাম দিয়েছে।

কোয়েৎজি বলেছেন, নতুন ভ্যারিয়েন্টটি মৃদু রোগের উপসর্গের সাথে সাথে মাংসপেশীর ব্যথা এবং এক অথবা দু’দিন পর্যন্ত ক্লান্তির বোধ তৈরি করতে পারে। আমরা এখন পর্যন্ত যাদের শরীরে এই ধরনটি শনাক্ত করেছি, তাদের স্বাদ বা গন্ধ চলে যায়নি। তবে তাদের হালকা কাশি হতে পারে। এর বিশেষ কোনো উপসর্গ নেই। যারা আক্রান্ত হয়েছেন, তাদের কয়েকজন বর্তমানে বাড়িতে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

দক্ষিণ আফ্রিকার এই স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বলেছেন, দেশের হাসপাতালগুলো এখনও ওমিক্রন রোগীতে উপচে পড়েনি। টিকা নেওয়া লোকজনের মাঝে নতুন ধরনটি শনাক্ত হয়নি। তবে একই সময়ে টিকা না নেওয়া লোকজনের ক্ষেত্রে পরিস্থিতি ভিন্ন হতে পারে।

অ্যাঞ্জেলিক কোয়েৎজি বলেছেন, আমরা কেবলমাত্র দুই সপ্তাহ পর এই বিষয়টি সম্পর্কে জানতে পারবো। হ্যাঁ, এটি সংক্রমণযোগ্য; কিন্তু আপাতত চিকিত্সক হিসাবে আমরা জানি না, কেন এটি নিয়ে এত হইচই শুরু হয়েছে। কারণ আমরা এখনও এই ধরনটির বিষয়ে বিস্তারিত জানতে পারি নাই।

তিনি বলেন, আমরা কেবলমাত্র দুই থেকে তিন সপ্তাহের মধ্যে এ বিষয়ে জানতে পারবো। কিছু রোগী এখন হাসপাতালে ভর্তি আছেন। তারা বয়সে তরুণ। তাদের কারও বয়স ৪০ এবং কারও তারচেয়ে কম।

নতুন ভ্যারিয়েন্ট শনাক্তের পর দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে বিশ্বের কিছু দেশের বিমানের ফ্লাইট বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেছেন দেশটির এই চিকিৎসক। এখনও এই ধরনটি কেমন বিপজ্জনক সে বিষয়ে পর্যাপ্ত তথ্য পাওয়া যায়নি, তার আগে দেশটির সঙ্গে ফ্লাইট নিষিদ্ধের সিদ্ধান্তে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তিনি।

ওমিক্রন শনাক্ত হওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, কানাডা, ইসরায়েল, অস্ট্রেলিয়া এবং আরও কিছু দেশ ও অঞ্চল দক্ষিণ আফ্রিকা ও ওই অঞ্চলের কয়েকটি দেশের বিরুদ্ধে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।

ডব্লিউএইচওর তথ্য বলছে, এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসের যে কয়েকটি ধরন শনাক্ত হয়েছে; তার মধ্যে ওমিক্রনের ‘রি-ইনফেকশন’ বা পুনরায় সংক্রমণের ক্ষমতা বেশি। অর্থাৎ—কেউ একবার এই ধরনে আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়ে উঠলেও ফের একই ভ্যারিয়েন্টে সংক্রমিত হতে পারেন।

দক্ষিণ আফ্রিকার কোয়াজুলু-নাটাল রিসার্চ অ্যান্ড ইনোভেশন সিকোয়েন্সিং প্ল্যাটফর্মের পরিচালক তুলিও ডি অলিভিয়েরা বলেছেন, নতুন ভ্যারিয়েন্ট বি.১.১.৫২৯ এর রূপ বদলে ফেলার গতি-প্রকৃতি অত্যন্ত অস্বাভাবিক। এই ভ্যারিয়েন্টটি ইতোমধ্যে ৩০বারের বেশি মিউটেশন ঘটিয়েছে তার স্পাইক প্রোটিনে।

সাধারণত সব ধরনের ভাইরাসই সময় এবং প্রকৃতি-পরিবেশের ওপর নির্ভর করে নিজের রূপ বদলে ফেলে। অনেক সময় এই রূপ বদল তেমন কোনো প্রভাব না ফেললেও কিছু কিছু ক্ষেত্রে আগের চেয়ে শক্তিশালী রূপে হাজির। ওমিক্রনের অস্বাভাবিক এই রূপ বদল সেই শঙ্কাই বাড়িয়ে তুলেছে।

আন্তর্জাতিক মহামারিবিদ ও জীবাণু বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, কয়েকবার রূপান্তরের মধ্যে দিয়ে যাওয়ার কারণে ওমিক্রন ধরনটি টিকাপ্রতিরোধী হওয়ার যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে। অর্থাৎ করোনা টিকার ডোজ সম্পূর্ণ করা ব্যক্তিরাও এই ধরনটির দ্বারা সহজেই আক্রান্ত হতে পারেন।
0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 23:23


নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে জাতীয়
বিশ্ববিদ্যালয়। এর অঙ্গীভূত বঙ্গবন্ধু মুক্তিযুদ্ধ বাংলাদেশ গবেষণা
ইন্সটিটিউটে তিনটি পদে ১০ জনকে নিয়োগ দেবে প্রতিষ্ঠানটি। আবেদন করা যাবে
অনলাইনে।


পদের বিস্তারিত

১. অধ্যাপক, পদ সংখ্যা ৩ জন
বিভাগ:বাংলা অর্থনীতি, ইতিহাস ও রাষ্ট্রবিজ্ঞান
বেতন: ৫৬,৫০০ থেকে ৭৪,৪০০


২. সহযোগী অধ্যাপক, পদ সংখ্যা ৩ জন
বিভাগ: ইংরেজী, অর্থনীতি, রাষ্ট্রবিজ্ঞান
বেতন: ৫০,০০০ থেকে ৭১,২০০


৩. সহকারী অধ্যাপক, পদ সংখ্যা ৩ জন
বিভাগ: ইংরেজী, ইতিহাস, সমাজবিজ্ঞান
বেতন: ৩৫,৫০০ থেকে ৬৭,০১০

এতে আবেদনের যোগ্যতা, অভিজ্ঞতা এবং বয়সসীমার শর্তাবলি প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট- www.nubd.info থেকে বিস্তারিত জানা যাবে।


আবেদনের নিয়ম: আগ্রহী প্রার্থীরা www.nubd.info/jobs -এ ওয়েবসাইট থেকে আবেদন করতে পারবেন।


আবেদনের শেষ সময়: ২৩ ডিসেম্বর ২০২১


0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 23:21

মাস্টারকার্ড এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড-২০২১ পেল ‘নগদ’

মাস্টারকার্ড এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড-২০২১ পেল ‘নগদ’


দেশে আর্থিক খাতে অন্তর্ভুক্তি বৃদ্ধিতে অবদান রাখার জন্য ‘মাস্টারকার্ড এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড-২০২১’ অর্জন করেছে বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুতবর্ধনশীল মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস ‘নগদ’। আর্থিক অন্তর্ভুক্তির পাশাপাশি মার্চেন্ট ক্যাটাগরিতে মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসে উল্লেখযোগ্য অবদানের রাখায় নগদ এই পুরস্কার পায়।

সম্প্রতি ঢাকায় ‘মাস্টারকার্ড এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড-২০২১’ নেক্সট অ্যান্ড বেয়ন্ড ঘোষণার মধ্য দিয়ে বিজয়ী প্রতিষ্ঠানসমূহের নাম প্রকাশ করা হয়। এ সময় প্রধান অতিথি হিসেবে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, বিশেষ অতিথি বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক মো. খুরশিদ আলম, বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন দূতাবাসের ‘চার্জ দি অ্যাফেয়ার্স’ হেলেন লা ফেইভসহ আরও অনেক ব্যক্তিবর্গ ও প্রতিষ্ঠান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

ডাক বিভাগের সেবা নগদ যাত্রার পর থেকে সহজ ও সাশ্রয়ী সেবা প্রদানের কারণে স্বল্প সময়ে দেশে জনপ্রিয় মোবাইল সেবা প্রতিষ্ঠান হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছে। দেশ সেরা সর্বনিন্ম ক্যাশ আউট চার্জ, ফ্রি ইউটিলিটি বিল পেমেন্ট, ফ্রি সেন্ড মানি এবং সেভিংসে সর্বোচ্চ মুনাফা প্রদানসহ আরও এমন অনেক সেবার কারণে দেশের সাধারণ মানুষের কাছে নগদের চাহিদা দিন দিন বাড়ছে।
nagad

নগদ ইতোপূর্বে বাংলাদেশে প্রথম ই-কেওয়াইসি উদ্ভাবনের জন্য বেস্ট ইনোভেশন ডিজিটাল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস অ্যাওয়ার্ড, বিশ্ব সেরা ফিনটেক উদ্যোগ হিসেবে ইনক্লুসিভ ফিনটেক ফিফটি অ্যাওয়ার্ড, বেস্ট ডিজিটাল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস প্রোভাইডার অ্যাওয়ার্ড, উইটসা গ্লোবাল আইসিটি এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড, ডিজিটাল বাংলাদেশ অ্যাওয়ার্ড, ফাইন্যান্সিয়াল টেকনোলজি ম্যান অব ইয়ার, ই-কমার্স মুভার অ্যাওয়ার্ড, বেস্ট মার্কেটিং কমিউনিকেশন অ্যাওয়ার্ডসহ আরও অনেক দেশীয় ও আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি অর্জন করেছে।

এবার ‘মাস্টারকার্ড এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড-২০২১’-এ মার্চেন্ট ক্যাটাগরিতে মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসে উল্ল্যেখযোগ্য অবদানের রাখায় নগদকে এই পুরস্কার প্রদান করা হয়। মাস্টারকার্ড কর্তৃক এক্সিলেন্স পুরস্কারটি মূলত যাত্রা শুরু করে ২০১৯ সালে। বিশেষত আর্থিক খাতে অন্তর্ভুক্তি বৃদ্ধিতে অবদানের জন্য বিভিন্ন ব্যাংক, ফিনটেক ও অন্যান্য কোম্পানিকে মূল্যায়নের উদ্দেশে এই পুরস্কারের যাত্রা।

নগদের এই অর্জনের বিষয়ে প্রতিষ্ঠানটির সহপ্রতিষ্ঠাতা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর এ মিশুক বলেন, ‘যেকোনো প্রাপ্তি মানুষকে তৃপ্তি দেয়। আমরা শুরু থেকে মানুষের জন্য সাশ্রয়ী ও সহজ সেবা দেওয়ার চেষ্টা করছি। আশা করছি ভবিষ্যতেও নগদের এক্সিলেন্স অব্যাহত থাকবে।’

মাস্টারকার্ড বাংলাদেশে ব্যবসায়িক পদচারণার ৩০ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে তার ৩৫টি শীর্ষ পার্টনার ব্যাংক, ফাইন্যান্সিয়াল ইন্সটিটিউশন এবং মার্চেন্টদের স্বীকৃতিস্বরূপ এই আয়োজন করছে। ফলে এই স্বীকৃতি প্রদানের তৃতীয় বছরে এসে ব্যবসায়িক প্রবৃদ্ধিতে উদ্ভাবন ও সফলতায় অবদান রাখায় প্রতিষ্ঠানটি তার ব্যবসায়িক পার্টনারদের বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে এই সম্মাননা প্রদান করেছে।
0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 23:18

বিষাক্ত গাছ ম্যানশিনীল

বিষাক্ত গাছ ম্যানশিনীল
বিশ্বে নানা প্রান্তে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে লাখো প্রজাতির গাছ। এসব গাছ আমাদের জীবন। মহামূল্যবান অক্সিজেন সরবরাহ করে প্রাণিজগৎকে বাঁচিয়ে রাখে। কিন্তু এই বিশ্বেই আবার এমন গাছ আছে যা প্রাণও কেড়ে নিতে পারে। তেমনই একটি গাছ হল ‘ম্যানশিনীল’।

যাকে ‘মৃত্যুগাছ’ বলেও ডাকা হয়। শুধু তাই নয়, বিশ্বের সবচেয়ে বিষাক্ত গাছ হিসেবেও পরিচিত ম্যানশিনীল। ক্যারিবীয় সাগরের তটে মূলত এই গাছ দেখা যায়। উচ্চতা ৫০ ফুট পর্যন্ত হতে পারে। এই গাছ এতটাই বিষাক্ত যে এর সংস্পর্শে এলে দেহের ত্বক পুড়ে যেতে পারে।

দাবি করা হয়, এই গাছের ফল খেলে দেহের ভেতরে রক্তক্ষরণ হতে শুরু করবে এবং কিছুক্ষণের মধ্যে মৃত্যু হতে পারে। এই গাছে দুধের
মতো ঘন রস থাকে। পাতা, গাছের ছাল এবং ফলেও সেই রস পাওয়া যায়। সেই রস কোনোভাবে শরীরের সংস্পর্শে এলে পুড়ে যাওয়ার মতো ক্ষত সৃষ্টি হয়।
nagad

সায়েন্স অ্যালার্ট পত্রিকা বরাত দিয়ে ভারতীয় গণমাধ্যম আনন্দবাজার জানায়, ‘এই রসে ফরবল নামে এক ধরনের বিষ থাকে। যা সহজে পানির সাথে মিশে যায়। তাই বৃষ্টির সময় এই গাছের নিচে আশ্রয় নিতে বারণ। কারণ বৃষ্টির সঙ্গে এই রস মিশে শরীরের সংস্পর্শে এলে বা কোনো কারণে চোখে গেলে দৃষ্টিশক্তির ক্ষতিও হতে পারে।

গিনেস বুকেও বিশ্বের সবচেয়ে বিপজ্জনক গাছ হিসেবে নথিভুক্ত হয়েছে ম্যানশিনীলের নাম। তবে স্থানীয় বাস্তুতন্ত্রকে টিকিয়ে রাখতে এই গাছের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। সমুদ্রের পানি থেকে মাটিক্ষয় রোধ করে এই গাছ।
0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 23:09

ভিকি-ক্যাটরিনার বাগদান সম্পন্ন

ভিকি-ক্যাটরিনার বাগদান সম্পন্ন


ভিকি কৌশল ও ক্যাটরিনা কাইফের বিয়ে নিয়ে নানা কথা শোনা যাচ্ছে। দুজনে ডেট করছেন। বলিউডের অন্দরে গুঞ্জন, ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহেই নাকি বিয়ে করতে চলেছেন ভিকি কৌশল ও ক্যাটরিনা কাইফ। বিয়ের পোশাক তৈরিও নাকি শুরু হয়ে গেছে। এর মধ্যেই জানা গেল, চুপিসারে বাগদান সেরেছেন ভিকি-ক্যাটরিনা।

সূত্রের খবর, পরিচালক কবীর খান ও মিনি মাথুরের বাড়িতেই অ্যাংগেজমেন্ট সারলেন ভিকি-ক্যাটরিনা। ক্যাটরিনা পরিচালক কবীর খানের সঙ্গে নিউ ইয়র্ক, এক থা টাইগার, টাইগার জিন্দা হের মতো হিট ছবি করেছেন। মূলত কবীরকে ক্যাট তার ভাই পাতিয়েছেন, সেই কারণেই হয়ত তার জীবনের বিশেষ মুহূর্তে তাদের সামিল করেছেন।

পুরো অনুষ্ঠানটাই হয়েছিল খুবই ঘরোয়াভাবে। ভিকি-ক্যাটের বাগদানে উপস্থিত এক কাছের বন্ধু জানান, ভীষণ সুন্দরভাবে সবকিছু সাজানো হয়েছিল ভিকি-ক্যাটের বাগদানের অনুষ্ঠান। লেহেঙ্গায় সেজেছিলেন ক্যাটরিনা। সারা বাড়ি সাজানো হয়েছিল আলো দিয়ে।
nagad

ভিকি ও ক্যাটরিনার সেই কাছের বন্ধু আরও জানান, দীপাবলির সময়টা এমনিতেই বেশ শুভ। তাই এ সময়কেই বেছে নিয়েছেন ক্যাটরিনা-ভিকির পরিবার। গোটা অনুষ্ঠানটা দাঁড়িয়ে থেকে হোস্ট করছেন কবীর ও মিনি।

বাগদানের অনুষ্ঠান বিয়ের আগে হয়ে থাকে যেখানে হবু বর-বউ একে অপরের সঙ্গে আংটি বদল করে থাকেন। এমনিতেই বলিউডে লিডিং লেডিদের অ্যাংগেজমেন্ট রিং দেখার জন্যে মুখিয়ে থাকেন দর্শকরা। যেমনটা হয়েছিল শিল্পা শেঠি, অনুশকা শর্মা, দীপিকার বিয়ের সময়। ডিসেম্বরে বিয়ে হলেও হানিমুন নাকি বিয়ের পর করতে পারবেন না ভিকি–ক্যাটরিনা। অন্তত এমনটাই জানা গেছে সূত্রে। একদিকে ক্যাটরিনার ‘টাইগার-৩’র শুটিংয়ের কিছু অংশ বাকি রয়েছে। অন্যদিকে ডিসেম্বরেই নাকি শুরু হবে ভিকির স্যাম বাহাদুর বায়োপিকের শুটিং। এ ছবিতে ভিকিকে দেখা যাবে শ্যাম মিনিক্ষর চরিত্রে।

২০১৯ থেকেই প্রেম করছেন ক্যাটরিনা-ভিকি। বিভিন্ন জায়গায় একসঙ্গে দেখাও গেছে তাদের। বিয়ের ভেন্যু হিসেবে ক্যাটরিনার পছন্দ রাজস্থানের সিক্স সেন্সেস ফোর্ট বারওয়ারা। রাজস্থানের বিখ্যাত রনথাম্ভোর জাতীয় উদ্যান থেকে এ দুর্গের দূরত্ব মাত্র তিরিশ মিনিটের। দুর্গ না বলে একে অভিজাত রিসোর্ট বলাই ভালো। আসলে ক্যাটরিনার বরাবরই রানির মতো বিয়ে করতে চেয়েছিলেন সেই কারণেই রাজস্থানই ক্যাটের প্রথম পছন্দ। রিসোর্টের ওয়েবসাইটের বুকিং সাইটে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, ৬ ডিসেম্বর থেকে ১১ ডিসেম্বর পর্যন্ত রিসোর্টে কোনো বুকিং করা যাচ্ছে না। স্বাভাবিকভাবে দুই-দুই চার করতে অসুবিধা হচ্ছে না কারও।

সূত্র: এই সময়
0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 23:08

শ্রাবন্তীর গলার লকেটে নজর কেড়েছে ভক্তদের

শ্রাবন্তীর গলার লকেটে নজর কেড়েছে ভক্তদের
ভারতীয় অভিনেত্রী শ্রাবন্তী আর বিতর্ক যেন সমার্থক শব্দে পরিণত হয়েছে। এটা এখন টলিপাড়ার প্রচলিত কথা। নায়িকার তিন তিনবার বিয়ে ভাঙা, নতুন প্রেমের চর্চা, অসফল রাজনৈতিক ক্যারিয়ার, কয়েক মাসেই পদ্মশিবিরের মোহভঙ্গ, ফের তৃণমূলে যোগ দেওয়ার জল্পনা- সবই জারি রয়েছে।

কিন্তু এসব বিতর্ক নিয়ে মাথা ঘামাতে রাজি নন শ্রাবন্তী। তিনি বিশ্বাস করেন, ‘জীবন তোমাকে শক্ত হতে শেখায়, তাও নিজের প্রচেষ্টায়।’ এই কথাটা মনেপ্রাণে বিশ্বাস করেন অভিনেত্রী।

কাজ নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন শ্রাবন্তী, পাশাপাশি হুট-হাট বিভিন্ন জায়গায় ঘুরতে যাচ্ছেন। এছাড়া কয়েক মাস আগে ঘটা করে নিজের একটি জিম খুলেছেন অভিনেত্রী। ফিটনেস নিয়ে ব্যাপক মাথা ঘামান শ্রাবন্তী ব্যাপারটা তেমন নয়। এর আগে অনেক সময় শরীর নিয়ে কটাক্ষের মুখে পড়েছেন ৩৫ বছর বয়সী এই নায়িকা।
0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 23:06

প্রভার ‘বাগদান’ সম্পন্ন

প্রভার ‘বাগদান’ সম্পন্ন


শোবিজের দুনিয়ায় একটু আড়াল, বড় গুঞ্জন— আড়াল নিয়ে সমালোচকরা রূপকথার গল্পের মতো রঙিন গল্প বলে যান। এ সব গল্পকার ক্লান্ত হওয়ার আগেই ভেঙে যায় আড়াল, উন্মোচন হয় সব খবর। কিছু গুঞ্জন সত্য হয়, আবার কিছু মিথ্যা প্রমাণিত হয়। এ সব আলো-অন্ধকার নিয়েই রঙিন দুনিয়া। এ সব গল্পের প্রধান চরিত্রের মধ্যে বাংলাদেশের নাটকের জনপ্রিয় মুখ অভিনেত্রী সাদিয়া জাহান প্রভা।

ছোট পর্দার লাস্যময়ী এই অভিনেত্রী রূপ-লাবণ্যে যেমন দর্শকের হূদয় হরিণী, অভিনয়েও তার দক্ষতা নিপুণ। শোবিজে আত্মপ্রকাশের পর চমত্কারভাবে নিজেকে মেলে ধরেছিলেন। তার ক্যারিয়ারে যখন বসন্তের হাওয়া লাগে, ঠিক তখনই একটি অপ্রত্যাশিত ঘটনার কারণে মিডিয়া থেকে আড়ালে চলে যান। সেই ধাক্কা সামলে আবারও ঘুরে দাঁড়িয়েছেন প্রভা। নিয়মিত কাজও করছেন। তবে এখন তিনি ব্যক্তিগত জীবন একেবারেই নিজের মতো করে আড়ালে রাখেন। নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টটিও রাখেন প্রাইভেসিতে।

এদিকে শোনা যাচ্ছে— নতুন করে ঘর বাঁধতে চলেছেন প্রভা। ইতোমধ্যে তার বাগদানও হয়ে গেছে। তার সোশ্যাল অ্যাকাউন্টে আপলোড করা বিভিন্ন ছবিতে বাগদানের ইঙ্গিতও মিলেছে। বহু ছবিতে তার অনামিকায় দেখা গেছে আংটি।
nagad

ধারণা করা হচ্ছে, গত বছরই বাগদান সেরেছেন প্রভা। তার সোশ্যাল অ্যাকাউন্ট ঘাঁটলে এমনটাই অনুমান করা যায়। প্রশ্ন উঠতে পারে, তার হাতের আংটি শুটিংয়ের প্রয়োজনেও হতে পারে। এর বিপরীতে জবাব হলো, প্রভা তার অনামিকায় একটি নির্দিষ্ট আংটিই পরেন এবং সেটা গত বছরের মাঝামাঝি সময় থেকে।

মাঝে একবার গুঞ্জন শোনা গিয়েছিল, ছোট পর্দার এক তরুণ অভিনেতার সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়েছেন প্রভা। তার নামের প্রথমে ‘জে’ অক্ষরটি রয়েছে। যদিও প্রভা কিংবা ওই অভিনেতার পক্ষ থেকে এ গুঞ্জনের বিপরীতে কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

প্রভা প্রথম বিয়ে করেছিলেন জনপ্রিয় অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্বকে। ২০১০ সালে তারা বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। কিন্তু এর পরই প্রাক্তন প্রেমিক-বাগদত্তার সঙ্গে প্রভার একটি স্ক্যান্ডাল ফাঁস হয়। এ কারণে এক বছরের মাথায় অপূর্বর সঙ্গে ডিভোর্স হয়ে যায় তার।

২০১১ সালে মাহমুদ শান্ত নামের এক ব্যক্তিকে বিয়ে করেন প্রভা। সেই সংসার টিকেছিল ২০১৪ সাল পর্যন্ত। এরপর থেকে একাই ছিলেন অভিনেত্রী। তবে এবার হয়তো একাকীত্ব ঘুচিয়ে নতুন করে সংসারের স্বপ্ন বুনতে চলেছেন তিনি। তবে এই গুঞ্জনের সত্যতার জন্য অপেক্ষা করতে হবে।
0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 17:28

কয়লাখনিতে নবম গ্রেডে চাকরির সুযোগ

কয়লাখনিতে নবম গ্রেডে চাকরির সুযোগ
শূন্যপদে জনবল নিতে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে পেট্রোবাংলার অধীনে প্রতিষ্ঠান মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেড (এমজিএমসিএল)। এতে বিভিন্ন পদে নবম গ্রেডে ৩৭ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে। আবেদন করা যাবে অনলাইনে।

পদের নাম: সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল)
পদ সংখ্যা: ৩ জন
আবেদনের যোগ্যতা: কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএসসি-ইন-সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি অথবা ৫ বছরের অভিজ্ঞতাসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি থাকতে হবে।
বেতন: ২২,০০০/- থেকে ৫৩,০৬০/-

পদের নাম: সহকারী প্রকৌশলী (ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক)
পদ সংখ্যা: ৪ জন
আবেদনের যোগ্যতা: কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএসসি ইন ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং/ ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং/ ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং/ ইলেকট্রনিকস অ্যান্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি অথবা ৫ বছরের অভিজ্ঞতাসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি থাকতে হবে।
বেতন: ২২,০০০/- থেকে ৫৩,০৬০/-

পদের নাম: সহকারী প্রকৌশলী (মেকানিক্যাল)
পদ সংখ্যা: ৭ জন
আবেদনের যোগ্যতা: কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএসসি ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি অথবা ৫ বছরের অভিজ্ঞতাসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি থাকতে হবে।
বেতন: ২২,০০০/- থেকে ৫৩,০৬০/-

পদের নাম: সহকারী প্রকৌশলী (মাইনিং)
পদ সংখ্যা: ৩ জন
আবেদনের যোগ্যতা: কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএসসি ইন মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং/ পেট্রোলিয়াম অ্যান্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং/ পেট্রোলিয়াম অ্যান্ড মিনারেল রিসোর্স ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি অথবা ৫ বছরের অভিজ্ঞতাসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি থাকতে হবে।
বেতন: ২২,০০০/- থেকে ৫৩,০৬০/-

পদের নাম: সহকারী ব্যবস্থাপক (আইনসিটি)
পদ সংখ্যা: ২ জন
আবেদনের যোগ্যতা: কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএসসি ইন কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং/কম্পিউটার সায়েন্স/ইলেকট্রনিকস অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং/ইলেকট্রনিকস অ্যান্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং/ইনফরমেশন অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং/ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং/ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং/ইনফরমেশন অ্যান্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং/সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং/ইনফরমেশন টেকনোলজি ডিগ্রি অথবা ৫ বছরের অভিজ্ঞতাসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি থাকতে হবে।
বেতন: ২২,০০০/- থেকে ৫৩,০৬০/-

পদের নাম: সহকারী ব্যবস্থাপক (আইন)
পদ সংখ্যা: ১ জন
আবেদনের যোগ্যতা: কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ল/ল অ্যান্ড জাস্টিস/ল অ্যান্ড অ্যাডমিনিস্ট্রেশন বিষয়ে প্রথম শ্রেণি/সমমানের স্নাতকোত্তর ডিগ্রি দ্বিতীয় শ্রেণি/সমমানের স্নাতকসহ (সম্মান) দ্বিতীয় শ্রেণি বা সমমানের স্নাতকোত্তর ডিগ্রি। অথবা সংশ্লিষ্ট বিষয়ে চার বছর মেয়াদি স্নাতক (সম্মান) ডিগ্রি থাকতে হবে।
বেতন: ২২,০০০/- থেকে ৫৩,০৬০/-

পদের নাম: সহকারী ব্যবস্থাপক (সাধারণ)
পদ সংখ্যা: ৬ জন
আবেদনের যোগ্যতা: কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিষয়ে প্রথম শ্রেণি/ সমমানের স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অথবা দ্বিতীয় শ্রেণি/ সমমানের স্নাতকসহ (সম্মান) দ্বিতীয় শ্রেণি/ সমমানের স্নাতকোত্তর ডিগ্রি। অথবা সংশ্লিষ্ট বিষয়ে চার বছর মেয়াদি স্নাতক/ স্নাতক (সম্মান) ডিগ্রি থাকতে হবে।
বেতন: ২২,০০০/- থেকে ৫৩,০৬০/-

পদের নাম: সহকারী ব্যবস্থাপক (হিসাব ও অর্থ)
পদ সংখ্যা: ৭ জন
আবেদনের যোগ্যতা: কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অ্যাকাউন্টিং/অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেম/ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ/ম্যানেজমেন্ট/ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম/ফিন্যান্স/ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং/ব্যাংকিং অ্যান্ড ইনস্যুরেন্স/মার্কেটিং/ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস বিষয়ে প্রথম শ্রেণি/সমমানের স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অথবা দ্বিতীয় শ্রেণি/সমমানের স্নাতকসহ (সম্মান) দ্বিতীয় শ্রেণি/সমমানের স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অথবা বাণিজ্যিক বিষয়ে চার বছর মেয়াদি স্নাতক (সম্মান) ডিগ্রি/বিবিএ/সিএ অথবা আইসিএমএ (ইন্টারমিডিয়েট)/এমবিএ ডিগ্রি থাকতে হবে।
বেতন: ২২,০০০/- থেকে ৫৩,০৬০/-

পদের নাম: সহকারী ব্যবস্থাপক (ভূতত্ত্ব)
পদ সংখ্যা: ৩ জন
আবেদনের যোগ্যতা: কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে জিওলজি/জিওলজি অ্যান্ড মাইনিং/জিওলজিক্যাল সায়েন্স বিষয়ে প্রথম শ্রেণি/সমমানের স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অথবা দ্বিতীয় শ্রেণি/সমমানের স্নাতকসহ (সম্মান) দ্বিতীয় শ্রেণি/সমমানের স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অথবা সংশ্লিষ্ট বিষয়ে চার বছর মেয়াদি স্নাতক (সম্মান) ডিগ্রি থাকতে হবে।
বেতন: ২২,০০০/- থেকে ৫৩,০৬০/-

পদের নাম: সহকারী ব্যবস্থাপক (মেডিকেল)
পদ সংখ্যা: ১ জন
আবেদনের যোগ্যতা: কোনো স্বীকৃত মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস ডিগ্রিসহ বিএমডিসির রেজিস্ট্রেশন নম্বর প্রাপ্ত অথবা দেশের বাইরে এমবিবিএস সমমানের সনদপ্রাপ্ত যা বিএমডিসি কর্তৃক অনুমোদিত হতে হবে এবং বিএমডিসির রেজিস্ট্রেশন নম্বর থাকতে হবে।
বেতন: ২২,০০০/- থেকে ৫৩,০৬০/-


বয়স: আগ্রহী প্রার্থীর বয়স ২০২০ সালের ২৫ মার্চ হিসাবে ১৮-৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে। প্রতিবন্ধী ও মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের ক্ষেত্রে বয়স সর্বোচ্চ ৩২ বছর।

আবেদনের নিয়ম: আগ্রহী প্রার্থীরা http://mgmcl.teletalk.com.bd/ -এ ওয়েবসাইট থেকে আবেদনপত্র করতে পারবেন।

বিজ্ঞপ্তি দেখুন এখানে— http://www.petrobangla.org.bd/sites/default/files/files/petrobangla.portal.gov.bd/notices/ff6291c6_bbc0_450d_89df_c2dc30921505/2021-11-24-05-09-dbaa18f5f361ad54ebdba50b8593b9d9.pdf

আবেদনের শেষ সময়: ২৩ ডিসেম্বর ২০২১ বিকাল ৫টা পর্যন্ত।
0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 17:24

See this

0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 17:22

Wah! Nice Child

0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 17:20

শিক্ষক নিয়োগ দেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

শিক্ষক নিয়োগ দেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। এতে অর্থনীতি বিভাগের প্রভাষক পদে তিনজনকে নিয়োগ দেবে প্রতিষ্ঠানটি। ডাকযোগে করা যাবে আবেদন।


পদের নাম: প্রভষক
বিভাগ: অর্থনীতি

পদ সংখ্যা: ৩ জন

আবেদনের যোগ্যতা: কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতি বিষয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রিতে প্রথম শ্রেণি বা ৪.০০ স্কেলে কমপক্ষে ৩.৫০ সিজিপিএ থাকতে হবে। আর মাধ্যমিকে ৫.০০ স্কেলে কমপক্ষে ৪.২৫ জিপিএ থাকা লাগবে।

বেতন: ২২,০০০/- থেকে ৫৩,০৬০/-

আবেদনের ঠিকানা: রেজিস্ট্রার দপ্তর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ঠিকানায় পাঠাতে হবে।

আবেদনের শেষ সময়: ১৪ ডিসেম্বর ২০২১
0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 17:19

ইসলামের দৃষ্টিতে ভূমিকম্প হওয়ার কারণ কী?

ইসলামের দৃষ্টিতে ভূমিকম্প হওয়ার কারণ কী? | ফাইল ছবি
পবিত্র কুরআনে ভূমিকম্প বিষয়ে ‘যিলযাল’ এবং ‘দাক্কা’ শব্দ দুটি ব্যবহৃত হয়েছে। ‘যিলযাল’-এর অর্থ একটি বস্তুর নড়াচড়ায় আরেকটি বস্তু নড়ে ওঠা। ‘দাক্কা’ এর অর্থ প্রচণ্ড কোনো শব্দ বা আওয়াজের কারণে কোনো কিছু নড়ে ওঠা বা ঝাঁকুনি খাওয়া।

পৃথিবীতে বর্তমানে যেসব ভূমিকম্প ঘটছে, তা বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিতে ভূপৃষ্ঠের অভ্যন্তরে কঠিন শিলাত্বকে চ্যুতি বা স্থানান্তরের কারণে। কেয়ামতের দিন ফেরেশতা হজরত ইসরাফিল (আ.)-এর সিঙ্গায় ফুৎকারের কারণে চূড়ান্ত ভূমিকম্পে পৃথিবী টুকরো টুকরো হয়ে ধূলিকণায় পরিণত হবে এবং তা হবে ‘দাক্কা’।

মহান আল্লাহ বলেন, (আসলে) আমি ভয় দেখানোর জন্যই (তাদের কাছে আজাবের) নিদর্শনসমূহ পাঠাই। (সুরা ইসরা: ৫৯)

আবুল ইয়ামান (রহ.) আবূ হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী (সা.) বলেছেন, কিয়ামত কায়েম হবে না, যে পর্যন্ত না ইলম উঠিয়ে নেওয়া হবে, অধিক পরিমাণে ভুমিকম্প হবে, সময় সংকুচিত হয়ে আসবে, ফিতনা প্রকাশ পাবে এবং হারজ বৃদ্ধি পাবে। (হারজ অর্থ খুনখারাবী) তোমাদের সম্পদ এত বৃদ্ধি পাবে যে, উপচে পড়বে। (সহিহ বুখারি, হাদিস নং: ৯৭৯)

রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, যখন অবৈধ উপায়ে সম্পদ অর্জিত হবে, কাউকে বিশ্বাস করে সম্পদ গচ্ছিত রাখা হবে কিন্তু তার খেয়ানত করা হবে, জাকাতকে দেখা হবে জরিমানা হিসেবে, ধর্মীয় শিক্ষা ছাড়া বিদ্যা অর্জন করা হবে, পুরুষ তার স্ত্রীর আনুগত্য করবে কিন্তু মায়ের সঙ্গে বিরূপ আচরণ করবে, বন্ধুকে কাছে টেনে নিয়ে পিতাকে দূরে সরিয়ে দেবে, মসজিদে উচ্চস্বরে শোরগোল হবে, জাতির সবচেয়ে দুর্বল ব্যক্তিটি সমাজের শাসকরূপে আবির্ভূত হবে, সবচেয়ে নিকৃষ্ট ব্যক্তি হবে নেতা, একজন মানুষ যে খারাপ কাজ করে খ্যাতি অর্জন করবে, তাকে তার খারাপ কাজের ভয়ে সম্মান প্রদর্শন করা হবে, বাদ্যযন্ত্র এবং নারী শিল্পীর ব্যাপক প্রচলন হবে, মদ পান করা হবে, লোকজন তাদের পূর্ববর্তী মানুষগুলোকে অভিশাপ দেবে, এমন সময় তীব্র বাতাস প্রবাহিত হবে এবং এমন একটি ভূমিকম্প হবে যা সেই ভূমিকে তলিয়ে দেবে। (তিরমিজি, হাদিস নং-১৪৪৭)।

আমরা বর্তমান পৃথিবীর দিকে তাকালে এ হাদিসের বাস্তবতা খুঁজে পাই। আল্লাহ আমাদের মাফ করুক, সবাইকে হেফাজত করুক।

ভূমিকম্প হলে যে দোয়া পড়বেন

রাসুল (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি এ দোয়া তিনবার পড়বে সে ভূমি ও আকাশের দুর্যোগ থেকে হেফাজতে থাকবে। এছাড়া যে কোনো দুর্যোগ থেকে রক্ষা পেতে পড়তে পারেন-

লা ইলাহা ইল্লা আনতা সুবহানাকা ইন্নি কুনতু মিনাজ জোয়ালিমিন।
0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 17:18

হজরত শাহজালালের সঙ্গে দেখা করতে বাংলায় এসেছিলেন ইবনে বতুতা

হজরত শাহজালালের সঙ্গে দেখা করতে বাংলায় এসেছিলেন ইবনে বতুতা-প্রতীকি ছবি
তৎকালীন বাঙলার আসাম ও সোনারগাঁওয়ে ইবনে বতুতার আগমন হয় ১৩৪৫-৪৬ খৃষ্টাব্দে। ইবনে বতুতার বিশ্ব ভ্রমণের অনেকাংশ জুড়েই ছিল সুফি-ফকিরদের আলাপ-আলোচনা।

তৎকালীন বাঙলা অঞ্চলেও তার সফরের মূলে ছিলেন একজন সুফি পীর। তিনি হচ্ছেন শাহজালাল র.। সে হিসেবে ইবনে বতুতার বাংলাদেশ ভ্রমণের উপাখ্যান মূলত শাহ জালাল র. এর-ই আলোচনা।

তবে বাদবাকি আলাপ-সালাপ ও বাংলার রাজনীতি নিয়ে ইবনে বতুতার সংক্ষিপ্ত ধারা বর্ণনা তার বিখ্যাত সফরনামা ‘তুহফাতুন নাজ্জার ফি গারা-ইবিল আমসার, ওয়া আজা-ইবিল আসফার’ গ্রন্থে বাদ যায়নি।
কারণ, দেশের সঙ্গে মানুষ ও শাসনের সম্পর্ক অঙ্গাঙ্গীভাবেই এগুতে থাকে সবসময়। ইবনে খালদুন বলেন, বিশ্ববাসী জাতি ও জনগোষ্ঠী সমূহের অভ্যাস, অবস্থা ও ধর্মপালন চিরকাল এক অভিন্ন ও অপরিবর্তনীয় ধারায় চলে না।

যেমন, ভূ-পৃষ্ঠ, সময়-কাল ও রাজ্য-সাম্রাজ্যের কোন স্থিতি নেই। এটাই মহান আল্লাহর নিয়ম। এই পরিবর্তনের বড় কারণ হচ্ছে, প্রত্যেক সমাজ ও জনগোষ্ঠীই কম-বেশি শাসক-প্রশাসক দ্বারা প্রভাবিত হয়, তাদের অনুসরণে চলতে বাধ্য হয়।

ইচ্ছায় হোক, আর অনিচ্ছায়। তাতে এই বিজ্ঞানসম্মত কথাটিরই যথার্থতা প্রমাণিত হয়— الناس علي دين ملوكهم – আন্নাসু আলা দিনি মুলু-কিহিম – ‘জনগণ তাদের শাসক-প্রশাসকদের আদর্শ ও রীতি-নীতিই সাধারণভাবে মেনে চলে’।

সুতরাং ব্যাক্তিজীবনে রাজনীতির সরাসরি সম্পৃক্ততা কারও না থাকলেও রাজনীতি জনমানুষের কাছে অক্সিজেন-হাইড্রোজেন'র মতো। হয়তো আপনি শ্বাস নেবার সময় বাতাস টের পাচ্ছেন কিংবা শ্বাস ফেলবার সময়।

বাংলার পথে

ইবনে বতুতা যখন শ্রীলঙ্কা থেকে অ্যাডাম'স পিক দেখে ফিরছেন তখন তাদের জাহাজ বাতাসের কবলে পড়ে। এরপর তারা মালাবার যান এবং সেখান থেকে ফেরার পথে ডাকু দলের খপ্পরে পড়েন। সঙ্গে থাকা সব কিছু রেখে দেয় ডাকাত দল। নামিয়ে দেয় উপকূলে।

ইবনে বতুতা বলেন, ‘শুধু সালোয়ারটা গায়ে রেখেছে ওরা!’ এরপর কোনমতে কালিকট যান। সেখানে কিছুদিন থেকে এরপর মালদ্বীপে তার পুত্রশিশুকে দেখতে শ্বশুরালয়ে যান। অতঃপর জাহাজে করে রওয়ানা হোন বাঙাল মূলুকের উদ্দেশ্যে।

যাবেন প্রখ্যাত এক বুজুর্গের সাক্ষাতে। প্রায় পয়তাল্লিশ দিন পর তারা চাটগাঁ (চট্টগ্রাম) বন্দরে নোঙর করেন।

ইবনে বতুতা বাঙাল মুলুকের স্মৃতিচারণ করতপ গিয়ে বলেন- ‘আমরা চাটগাঁ নামলাম, বিশাল এক শহর। গঙ্গা এবং যমুনার মোহনা সাগরে এসে নেমে গেছে এখানে। এখানকার নদীতে যুদ্ধজাহাজ আছে অনেক। লৌখনৌতির সঙ্গে এদের যুদ্ধ হয়। এখানে চালের মূল্য খুব সস্তা। কিন্তু এই অঞ্চল অন্ধকার।

খোরাসানে প্রবাদ আছে, ‘দোজখত্ পুর নি'মাত; নেয়ামতে ভরপুর এক দোজখ।’ হয়তো তিনি শিক্ষা-দীক্ষায় অনগ্রসরতা বুঝাতে 'অন্ধকার' বলেছেন। কিংবা এত সুন্দর এক দেশে অথচ রাজনৈতিক কারণে থাকতে পারছেন না তিনি!

বাংলার অর্থনীতি-ই এর সর্বনাশ!

তিনি এখানকার জিনিসপত্রের একটা তুলনামূলক দাম উল্লেখ করেছেন। এক কথায় এখানকার জিনিসপত্রের সস্তা মূল্য দেখে তিনি পুরোই অবাক বিস্মিত ছিলেন।

তিনি বলেন, ‘তবুও নাকি এই দাম তাদের নিকট অনেক বেশি!’ সফরনামা'র আধা পৃষ্ঠা জুড়ে শুধুই জিনিসপত্রের দাম তুলে ধরেছেন। তার কাছে বিষয়টা যতটা আনন্দদায়ক ছিল, আমাদের মতো ইতিহাসের পাঠকদের জন্য ঠিক ততটাই বজ্রাঘাত ছিল শান্তিপূর্ণ জীবন ধারণকারী মানুষগুলোর কথা চিন্তা করে।
কারণ, কিছু কিছু গবেষকের মতে, ইবনে বতুতার বই আরবী থেকে ল্যাটিনে অনুবাদ হবার পর ইংরেজ সাম্রাজ্যবাদী আগ্রাসনের সূত্রপাত ঘটে এই উপমহাদেশে। যদিও আগমনের ধারাবাহিকতায় ওলন্দাজ, পর্তুগীজ ও ফ্রান্সের বণিকদের আগমন ইংরেজদের আগেই হয়। আর আরব বণিকদের যাত্রার কথা তো সুপ্রাচীন। কিন্তু তাদের মনে সাম্রাজ্যবাদী আগ্রাসনের মানসিকতা ছিল না।

তিনি আকস্মিক বাংলায় আসেননি

ইবনে বতুতার বাঙাল মুলুকের সফরের ব্যাপারে অনেকের ধারণা, নিরুদ্দেশের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়ে আকস্মিক তিনি বাংলায় এসেছেন। এমন ধারণা ভুল, এইচ আর গিব এখানে সফল।

কারণ ইবনে বতুতার সফরনামা'র পূর্ণাঙ্গ ইংরেজি অনুবাদ তিনি করেননি। আর ইবনে বতুতার বাঙ্গালী পাঠকসমাজ তাকে, হয় ইংরেজি থেকে পাঠ করেছে নয়তো বঙ্গানুবাদের দারস্থ হয়েছে।

অথচ ইবনে বতুতা নিজেই বলছেন, আমার পূর্বে এখানে আমার স্বদেশী মাহমুদ আল মাসমুদী বসবাস করেছেন; বাংলায়৷ আমার মনে হয়, তিনি স্বদেশীর কাছ থেকে বাংলার কথা শুনেই এখানে আসেন এবং শাহ জালাল র. এর সাথে সাক্ষাত করেন।

এইচ আর গিব বলেন, ‘ইবনে বতুতার বিশ্ব সফরের মূল উদ্দেশ্য ছিল, বুজুর্গ-অলি আওলিয়ার সাথে সাক্ষাত করা।’

যারা আকস্মিক সফরের সুর তুলেছেন তাদের বক্তব্য সম্ভবত মালদ্বীপ সফরে যাবার সময়ে হঠাৎ ঝড়ের কবলে পড়ে তাদের সফর বাতিল হওয়া এবং এরপর বাংলায় সফর করা- এতটুকুই। অথচ এটা কোন ভিত্তি হতে পারে না। কারণ, তিনি বাঙাল মুলুকের সম্যক ধারণা নিয়েই এখানে এসেছিলেন। পরবর্তী আলোচনায় বিষয়টা স্পষ্ট হয়ে যাবে।

ইবনে বতুতার জবানে সফরবৃত্তান্ত; আঞ্চলিক রাজনীতি

এবার ইবনে বতুতার জবানে শুনে নেয় তার বাঙাল মুলুক সফরের উদ্দেশ্য - ‘চাটগাঁ আসলাম। সেখানের সুলতানকে আমি দেখি নাই। তার সঙ্গে আমার সাক্ষাতও হয় নাই। আমি জানতে পেরেছিলাম, এই সুলতান দিল্লির সম্রাটের সঙ্গে বিদ্রোহ করেছে। তাই, এখানে অবস্থানের পরিনতির চিন্তা করে আশংকা করি এবং দ্রুত আমি সেখান থেকে কামরুপ পাহাড়ের উদ্দেশে রওয়ানা করি। পাহাড়টি খুব দীর্ঘ।

চীনের সাথে গিয়ে মিলেছে এবং তিব্বতেও এর অংশ আছে, যেখানে মৃগনাভির সন্ধান পাওয়া যায়। কামরুপের মানুষগুলো দেখতে তুর্কিদের মতো হয়। এরা যাদুবিদ্যা জানে। এখানকার পুরুষদের গায়ে প্রচুর শক্তি। অন্যান্য স্থানের পুরুষদের তুলনায় দিগুণ। এই পাহাড়ের দিকে আমার রওয়ানার উদ্দেশ্য সেখানকার প্রখ্যাত পীর শেখ জালালুদ্দিন তিবরিজীর সাথে সাক্ষাত করা।

ওপরের বিবরণীতে ইবনে বতুতার কন্ঠে প্রতিধ্বনিত হচ্ছিল, আঞ্চলিক রাজনীতিতে রাজদরবারের অবস্থান। সমাজিক অবস্থান। বিভিন্ন স্থানের রীতিনীতি, সাংস্কৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদের সন্ধান।

কিন্তু তার এই ছোট্ট ধারা বর্ণনার যাত্রাপথের শেষ গন্তব্য, তিনি যাচ্ছিলেন শায়খ জালালুদ্দিন তিবরীজির সাথে সাক্ষাত করতে। আমার ধারণা, ইবনে বতুতার বাংলা সফর আরও দীর্ঘ হতো যদি না তিনি দিল্লির রাজদরবারের ভয় পেতেন।

কারণ, বাংলার সুলতান নিজেদের স্বাধীন ঘোষনা করে রাজনৈতিকভাবে সম্রাটের সাথে বিদ্রোহ করেছিল। তাছাড়া, ইতোপূর্বে তিনি দিল্লির রাজকীয় পদে চাকুরী করেছেন এবং পরবর্তীতে সম্রাটের রাজদূত হয়ে চীন সফরে গিয়েছেন। এটাই রাজনীতির দরদাম এবং নিরীহপন্থার সহজ নির্বাচন।

শ্রীহট্টে শাহ জালালের দরগায়!

শাহ জালালুদ্দিন র. এর স্মৃতি চারণ করতে গিয়ে ইবনে বতুতা বলেন, আমরা কামারূপ পাহাড় পাড়ি দিয়ে আসি এক বুজুর্গ লোকের সাথে দেখা করতে। তিনি ছিলেন শেখ জালালুদ্দিন। আল্লাহ ওয়ালা, দরবেশ। তার অনুসারী নিয়ে তিনি গুহায় থাকতেন। দশ দিন পরপর নিজ গাই গরুর দুধ দিয়ে ইফতার করতেন। তার একমাত্র সম্পদ ছিল এই গাভী। সেখানকার লোকেরা তাকে অত্যান্ত সম্মান করত। হিন্দু মুসলিম সবাই তার কাছে হাদিয়া তোহফা নিয়ে আসত। এগুলো দিয়েই তার অনুসারীদের খাবারের প্রয়োজন মিটে যেত।

কিন্তু শাহজালাল (র.) দশদিন পরপর ইফতার করতেন। খাবার ছিল সেই গাভীর দুধ। তিনি প্রতিটি রাত-ই নামাজে কাটিয়ে দিতেন। হালকা-পাতলা গড়নের লম্বা দেহের মানুষ ছিলেন তিনি। পাহাড়ের লোকগুলো তার কাছে ইসলাম কবুল করা'য় তিনি সেখানেই থেকে যান।

ইবনে বতুতা বলেন, শেখ জালালুদ্দিনের অনেক কারামত ছিল। তার এক শাগরেদ আমাকে শুনিয়েছে, মৃত্যুর আগের দিন তিনি বললেন, আগামীকাল আমি তোমাদেরকে ছেড়ে চলে যাব। আমার প্রতিনিধিত্ব করবেন সেই আল্লাহ যিনি ছাড়া কোন ইলাহ নেই। পরদিন জোহরের নামাজের শেষ রাকাতের সেজদায় ইন্তেকাল করেন তিনি। তার হুজরাখানার দক্ষিণ পাশে একটি খননকৃত কবর পাওয়া যায়, পাশে কাফনের কাপড়। শাগরেদরা সেখানেই তার কাফন-দাফন ও জানাজা করেন।

আরেকটি কারামতের কথা উল্লেখ করেন ইবনে বতুতা, তখনও শেখ জালালুদ্দিন এর দরগা থেকে আমার অবস্থান দুইদিনের পায়ে হাঁটা পথ। পথে তার চার শাগরেদর সাথে আমার সাক্ষাত।

তারা বলল, শায়েখ তার নিকট উপস্থিত ভিক্ষুদের বলেছেন, মরক্কোর এক লোক আসছে। তোমরা ইসতেকবাল করে তাকে নিয়ে আসো। এই উদ্দেশ্যেই এই চারজন এসেছে। তাদের সাথে শায়েখের দরগায় গেলাম। গুহার বাহিরে ছাওনি করা। আশপাশে কোন ঘর নেই। এলাকার লোকেরা তার কাছে আসত। কি মুসলিম কি কাফির; সবাই আসত। হাদিয়া তোহফা যা আসত সবগুলোই ব্যায় হতো ভিক্ষু ও আগন্তুকদের জন্য। শায়েখ তার গাভীর দুধ খেয়েই জীবনধারণ করতেন।

আমি তার নিকট গেলে তিনিই উঠে এসে আমার সাথে কোলাকুলি করলেন এবং দেশবিদেশের অবস্থা ও সফরের হালহকিকত জিজ্ঞেস করলেন। সবকিছু বলার পর তিনি আমাকে বললেন, তুমি আরবের মুসাফির। তখন তার সঙ্গীরা বলল, আজমেরও মুসাফির। তখন তিনি বললেন, হ্যাঁ, তুমি আজমেরও মুসাফির।

এরপর তিনি শাগরেদদের বললেন, যাও, তার মেহমানদারি করাও। তারা আমার তিনদিন মেহমানদারি করায়।

ওপরের দুই কারামতের আলোচনা করে তৃতীয় আরেকটি কারামতের কথা বলেন ইবনে বতুতা। যেখানে এক ঘটনার মাঝে কয়েকটি কারামতের উল্লেখ পাওয়া যায়। এবং সবগুলোই ইবনে বতুতার সাথে সংশ্লিষ্ট।

ইবনে বতুতা বলেন, চীনে শায়খ জালালুদ্দিনের বন্ধু শায়খ বুরহানুদ্দিন সাগরিজি'র সাথে সাক্ষাতকালে তাকে শায়খ জালালুদ্দিন এর কারামতের কথা বললে তিনি বলেন, আমার ভাই জালালুদ্দিন এরচেয়ে বড় কিছু। এরপর তিনি আমাকে শুনিয়েছেন, আমার কাছে খবর এসেছে, জালালুদ্দিন প্রতিদিন ফজরের নামাজ বায়তুল্লাহ শরিফে আদায় করতেন এবং প্রতি বছর-ই হজ্জ করতেন। আরাফার দিবসে এবং কোরবানির দিন তাকে খুঁজে পাওয়া যেত না।

শায়খ জালালুদ্দিনের জন্মস্থান ছিল ইয়েমেনের কোনিয়া শহরে। এজন্য তাকে শাহজালাল ইয়ামানী বলে ডাকেন। এটাই প্রসিদ্ধ। তবে কেউ কেউ তাকে তুরষ্কের কোনিয়া প্রবাসী হিসেবে ধারণা করেন। যার আরেক নাম তিবরিজ। সেজন্য ইবনে বতুতা-ও তাকে 'তিবরিজি' বলে পরিচয় দিয়েছেন। শায়খ জালালুদ্দিন এর মৃত্যু ১৩৪৭ সনে হয়েছিল।

ইবনে বতুতা বলেন, এক বছর পর চীনে থাকাকালীন সময়ে আমি তার মৃত্যু সংবাদ পাই।

সোনারগাঁওয়ের পথে ইবনে বতুতা; এক দরগা থেকে আরেক দরগায়!

শাহ জালাল র. এর কাছ থেকে বিদায় নিয়ে নৌকাযোগে তারা রওনা হোন সোনারগাঁও'র পথে। টানা পনেরদিন চলার পরে সোনারগাঁও এসে পৌঁছান তারা। সুরমা নদীর নীল টলমলে পানি ও এর দুই পাশের সজ্জিত বাগান, পানি তোলার চরকা ও গ্রাম দেখে মুগ্ধ হন ইবনে বতুতা।

মিশরের নীল নদের সাথে এর তুলনা করেন তিনি। বলেন, এই নদী ধরে বঙদেশ ও লখনৌতি যাওয়া যায়। নদীর দু'ধারের অধিবাসীরা কাফের। মুসলিম শাসককে কর দিয়ে বসবাস করে তারা।

নদীর দু'ধারের অপরূপ সুন্দর গ্রাম ও বাগানের মাঝ দিয়ে যাচ্ছিলাম, কিন্তু মনে হচ্ছিল বাজারের মধ্য দিয়ে যাচ্ছি। নদীতে অনেক নৌযান। নদী পারাপারের জন্য সুফি-দরবেশদের থেকে কোন ভাড়া নেয়া হয় না। সুলতান ফখরুদ্দিনের আদেশ এটা। বরং যার পাথেয় নেই তাকে পাথেয় জোগাড় করে দেবার নির্দেশ আছে তার থেকে। আর যখন সুফি-দরবেশ শহরে পৌঁছায় তাকে অর্ধ দিরহাম প্রদান করা হয়। পনেরো দিনের সফর শেষে আমরা সোনারগাঁও পৌঁছলাম।

এরপর ইবনে বতুতা সেখানে কী করেছেন তার উল্লেখ আমার কাছে রিহলা'র যতগুলো কপি আছে তাতে কিছুই পাইনি। তিনি বলেন, আমরা একটি জাঙ্ক দেখলাম। জাভা'য় রওনা হবার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। তাতে চড়ে আমরা সে উদ্দেশ্যে রওনা হলাম।

সোনারগাঁও ইবনে বতুতা কেন এসেছিলেন তার উল্লেখ স্পষ্টভাবে ইতিহাসে পাওয়া মুশকিল। তবে ধারণা করা হয়, বুজুর্গদের প্রতি তার আসক্তি তাকে এখানে টেনে এনেছিল।

কারণ, ইবনে বতুতা এখানে আসার প্রায় অর্ধ শতক আগে সোনারগাঁওয়ে ছিলেন উপমহাদেশে ইলমে হাদিসের প্রথম মুহাদ্দিস শরফুদ্দিন আবু তাওয়ামা র.। ১৩০০ সনে তার ইন্তেকাল হয়। আর ইবনে বতুতা বাংলা সফর করেন ১৩৪৫-৪৬ সনে।

শায়খ শরফুদ্দীন আবু তাওয়ামার মাজার শরীফ বর্তমানে নারায়নগঞ্জের মোগড়াপাড়া। ইব্রাহিম দানিশমান্দ এর মাজারও সেখানেই আছে।

ইবনে বতুতার সোনারগাঁও সফরকালে বাঙলার তৎকালীন সুলতান ছিলেন ফখরুদ্দিন। তিনি শরফুদ্দিন আবু তাওয়ামা'র-ই কোন শাগরেদ বা শাগরেদের শাগরেদ হবেন হয়তো!

সুফিদের প্রতি সুলতানের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা-ই প্রকাশ করে এসব বুজুর্গের কতটা প্রভাব ছিল সুলতানের মাঝে। শায়খ শরফুদ্দিন আবু তাওয়ামা (র.) হাদিসের পাশাপাশি অধিবিদ্যা, গণিতশাস্ত্র, তর্কশাস্ত্র, আইনশাস্ত্র, সমাজবিজ্ঞান, জ্যোতির্বিজ্ঞান ইত্যাদি বিষয়ের উপর পাঠদান করতেন।

তার ছাত্র সংখ্যা ছিল প্রায় ১০ হাজার। তার ছাত্ররা সমাজ ও রাষ্ট্রের বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ ছিলেন। কিংবা তারা রাষ্ট্রের বিভিন্ন শ্রেণী-পেশায় যুক্ত হতেন। পনেরো শতাব্দীতে আবিষ্কৃত এক শিলালিপিতে সোনারগাঁও'র কিছু সরকারি আমলার নাম পাওয়া যায়, যাদের নামের শুরুতে ছিল 'মুহাদ্দিস' শব্দ।

কথিত কথা’র আলাপন

ইবনে বতুতার সফরনামার সূত্রে আবুল হাসান আলী নদভী মুহাদ্দিস শরফুদ্দিন আবু তাওয়ামা'র কথা উল্লেখ করেছেন। হয়তো উল্লিখিত বিষয়সহ ইবনে বতুতার সফরনামা'র এমন কোন এক কপি তিনি পেয়েছেন, যা আমাদের হস্তগত হয়নি।

শেষ কথা

ইবনে বতুতার চোখে ‘প্রাচুর্যে ভরপুর এক দোজখ’ এই বাংলা। সব আছে তবুও অন্ধকার। হয়তো এমন মন্তব্য নিজের অসহায়ত্বের দিকে তাকিয়ে তিনি করেছেন।

যেহেতু দিল্লির রোষানলে পড়তে পারেন তাই এত নিয়ামত থাকতেও ভোগ করার সুযোগ কই তার! ফলে আমরাও অনেক তথ্য-ই পাইনি তার থেকে। তিনি এই অঞ্চলকে দেখেছেন, সমৃদ্ধশালী। উর্বর। জীবাশ্মে ভরপুর।

এখানকার ভিন্ন ভিন্ন ধর্মের মানুষগুলোর সহাবস্থানও তিনি দেখিয়েছেন। তিনি দেখিয়েছেন জ্ঞানীর প্রতি রাষ্ট্রের কদর ও আদর যত্ন। তার সমাজবিজ্ঞানী চোখ একটু একটু করে খুট খুট করে সবই বলে দিয়েছে। সংক্ষেপে বিস্তারিতভাবে।

সমৃদ্ধশালী সমাজ বিনির্মানে কার্যকরী পদক্ষেপ নিতে আমাদের উচিত শক্তির উৎস সমূহ খুঁজে বের করা। হতাশার কিছু নেই, পৃথিবী সম্ভাবনাময় জগত। নতুবা পূর্ব পুরুষের মতো আরও দীর্ঘকাল আমরাও 'প্রাচুর্যে ভরপুর দোজখে'ই বসবাস করতে থাকব!

তথ্য সূত্র:

●তুহফাতুন নাজ্জার ফি গারাইবিল আমার ওয়া আজাইবিল আসফার- ইবনে বতুতা
●ট্রাভেলস অব ইবনে বতুতা(সংক্ষিপ্ত বাংলা) - এইচ এ আর গিব
●শরফুদ্দিন আবু তাওয়ামা, উপমহাদেশের প্রথম মুহাদ্দিস- মওলবি আশরাফ
●বাংলাপিডিয়া
●উইকিপিডিয়া
●ইন্টারনেট থেকে সংগৃহীত কিছু প্রবন্ধ
●ইসলামের ইতিহাস দর্শন- মাও. মুহাম্মদ আব্দুর রহিম
0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 17:17

ছাগলের দাম ১৮ লাখ টাকা

ছাগলের দাম ১৮ লাখ টাকা
নিলামে ছাগলটির দাম উঠেছে ২১ হাজার মার্কিন ডলার (১৮ লাখ টাকা)।

অস্ট্রেলিয়ার পশ্চিম নিউ সাউথ ওয়েলসে বুধবার অনুষ্ঠিত নিলামে ছাগলটিকে ওই দামেই কিনেছেন এন্ড্রু মোসলে।

কেনার পর মারাকেশ প্রজাতির ওই ছাগলটিকে ‘খুবই স্টাইলিশ’ বলে আখ্যা দিয়েছেন ক্রেতা। নিলামে ছাগল কেনায় উচ্চমূল্য পরিশোধের আগের রেকর্ডটি ছিল মোসলের দখলেই।

এই ছাগল ব্যবসায়ী গত বছর সেটি কিনেছিলেন ১২ হাজার মার্কিন ডলারে (১০ লাখ ৩০ হাজার টাকা)।

ছোটবেলা থেকেই বন্য ছাগল পালনে সম্পৃক্ত মোসলে প্রথম ছাগল বিক্রি করেছিলেন মাত্র ৫ ডলারে। ছাগল কেনাবেচা এখন তার নেশা-পেশা দুটোই।
0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 17:15

অনলাইনে ভর্তি প্রক্রিয়া

অনলাইনে ভর্তি প্রক্রিয়া


বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে অন্তর্ভুক্ত করে প্রথমবারের মতো দেশের সব ধরনের উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অনলাইনে লটারির মাধ্যমে ভর্তির উদ্যোগ গ্রহণের বিষয়টি প্রশংসনীয়। তবে এ লক্ষ্যে গত বৃহস্পতিবার আবেদনপত্র গ্রহণের কাজ শুরু হলেও প্রথম দিনেই প্রক্রিয়াটি হোঁচট খেয়েছে। শুধু তাই নয়, পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী সকাল ৯টায় ভর্তিসংক্রান্ত ওয়েবসাইট উন্মুক্ত করার কথা থাকলেও ২ ঘণ্টা পর সেটি খুলে দেওয়া হয়। সবচেয়ে বড় অভিযোগ হলো, বিলম্বে খোলা এ ওয়েবসাইটটি অপূর্ণাঙ্গ। সরকারি বিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে সব জেলার তথ্য আপলোড করা হয়নি। উপরন্তু অন্তত ১ হাজার ৩০০ বেসরকারি উচ্চ বিদ্যালয় এ প্রক্রিয়ার সঙ্গে অন্তর্ভুক্ত হয়নি, যার মধ্যে রাজধানীর খ্যাতনামা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানও রয়েছে।

স্বস্তির বিষয়, দেশে বিদ্যালয় পর্যায়ে এবার কোনো ভর্তি পরীক্ষা হবে না। ডিজিটাল পদ্ধতিতে অ্যাপসের মাধ্যমে আবেদনকারীদের নিয়ে লটারির আয়োজন করা হবে এবং সরকারি ও বেসরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রথম থেকে নবম শ্রেণিতে এই প্রক্রিয়ায় শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। জানা গেছে, একজন শিক্ষার্থী পাঁচটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আবেদন করতে পারবে। ১৫ ডিসেম্বর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে এবং ১৯ ডিসেম্বর বেসরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে লটারি অনুষ্ঠিত হবে। এ প্রক্রিয়ায় ৩০ ডিসেম্বর ভর্তির কাজ সম্পন্ন করে নতুন বছরের ১ জানুয়ারি সরাসরি ক্লাস শুরুর কথা রয়েছে।

সঙ্গত কারণেই অভিভাবকরা সন্তানদের নামকরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি করানোর জন্য উদগ্রিব থাকেন। মূলত এ সুযোগটিই এতদিন গ্রহণ করেছে ভর্তি বাণিজ্যের সঙ্গে যুক্ত অসাধু ব্যক্তিরা। প্রতিবছর এভাবে অভিভাবকদের পকেট থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অশুভ সংস্কৃতি শিক্ষাঙ্গনকে গ্রাস করতে উদ্যত হয়েছিল, এ কথা বলাই বাহুল্য। ভর্তি বাণিজ্যের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের মধ্যে স্কুলগুলোর গভর্নিং বডির সদস্য ও শিক্ষক-কর্মচারী ছাড়াও অভিভাবক নেতা, রাজনৈতিক নেতা, এমনকি আন্ডারওয়ার্ল্ডের সন্ত্রাসীদের নাম থাকার নজিরও সৃষ্টি হয়েছে। এ রকম একটি অবস্থায় সরকার অনিয়ম-দুর্নীতি রোধসহ শিক্ষার্থীদের অহেতুক হয়রানি থেকে বাঁচাতে পদক্ষেপ নিলেও তাতে গোড়ায় গলদ পরিলক্ষিত হচ্ছে, যা দুঃখজনক। দেখা যাচ্ছে, জনদুর্ভোগ হ্রাসকল্পে ভর্তি প্রক্রিয়ার খোলনলচে পালটে ফেলা হলেও উলটো তা দুর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কেন এমনটি হলো এবং এর পেছনে কারও কোনো অসৎ উদ্দেশ্য রয়েছে কিনা, তা উদঘাটন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। ‘ভর্তিযুদ্ধ’ নামের হয়রানি থেকে শিক্ষার্থীদের রক্ষা করার জন্য সরকার যে পদক্ষেপ নিয়েছে, তা শতভাগ নির্ভুল হবে, এটাই কাম্য।

0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 17:12

ওমিক্রন নিয়ে সব বন্দরে সতর্কবার্তা দিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

ওমিক্রন নিয়ে সব বন্দরে সতর্কবার্তা দিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর
বিশ্বের কয়েকটি দেশে শনাক্ত করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন নিয়ে দেশের সব বন্দরে সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে রোববার এ কথা জানিয়েছেন অধিদপ্তরের পরিচালক (রোগ নিয়ন্ত্রণ) মো. নাজমুল ইসলাম। তিনি বলেন, বন্দরগুলোয় নিরাপত্তা জোরদার করার জন্য বলা হয়েছে।

গত মঙ্গলবার দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনার নতুন একটি ধরন শনাক্ত হয়। এছাড়া বতসোয়ানা, ইসরাইল, হংকং, বেলজিয়াম, নেদারল্যান্ডস, যুক্তরাজ্য, জার্মানি ও ইতালিতেও নতুন এ ধরনের সন্ধান মিলেছে। ইসরাইল ওমিক্রন ঠেকাতে ১৪ দিনের জন্য বিদেশিদেরকে তাদের দেশে প্রবেশ নিষিদ্ধ করছে। নিউইয়র্কে জরুরি অবস্থা জারি করেছে রাজ্য গভর্নর। অন্যান্য দেশও কার্যকর পদক্ষেপ নিচ্ছে।

করোনার নতুন ধরনটিকে ‘উদ্বেগজনক’ বলে আখ্যায়িত করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘ডব্লিউএইচও ইতোমধ্যে ওমিক্রন ধরনটিকে উদ্বেগজনক বলেছে। আমরাও এ বিষয়ে সতর্ক আছি।

তিনি বলেন, গত ৩০ দিনে দেশে করোনা শনাক্তের নিম্নহার দেখা গেছে। এ হার ২ শতাংশের নিচে থেকেছে। কিন্তু এ পরিস্থিতিতে আমাদের আত্মতুষ্টিতে ভোগার কোনো কারণ নেই। মাস্ক পরাসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কোনো বিকল্প নেই।
0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 17:10

রোনাল্ডোর সাবেক ক্লাব জুভেন্টাসে পুলিশের অভিযান

রোনাল্ডোর সাবেক ক্লাব জুভেন্টাসে পুলিশের অভিযান
ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো তুরিন ছাড়ার পর জুভেন্টাসের পারফরম্যান্স আর আগের মতো নেই।

সিরি ‘আ’তে শিরোপা লড়াই থেকে অনেকটাই ছিটকে পড়েছে জুভেন্টাস। এখন পর্যন্ত খেলা ১৪ ম্যাচের ৫টিতে হেরেছে তুরিনের দলটি।

মাঠের এই ভাটা পড়া পারফরম্যান্সের বাইরেও অর্থ কেলেঙ্কারিতে জড়িয়েছে জুভেন্টাসের কর্মকর্তারা। যে কারণে পুলিশি অভিযান চলেছে ক্লাবটিতে।

অভিযোগ, ২০১৯ থেকে ২০২১ সালের মধ্যে দলবদল থেকে লভ্যাংশ আর এজেন্টদের ফি নিয়ে অনিয়ম করেছে তারা।

তদন্ত প্রতিবেদন বলছে, এই দুই বছরে ৪২ জন খেলোয়াড় কেনাবেচা করেছে জুভেন্টাস। এর মধ্যে রয়েছে মিরালেম পিয়ানিচ, আর্থুর, দানিলো ও হোয়া কানসেলোর মতো খেলোয়াড়দের দলবদলও। সেখানেই যত অনিয়ম করেছে ক্লাবটি।

জুভেন্টাসের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে ইতালির ফুটবলের বিভিন্ন অনিয়ম নিয়ে কাজ করা সংস্থা কভিসক ও অর্থ নিয়ন্ত্রক সংস্থা কনসবও।

প্রথমে তদন্ত শুরু হয় জুভেন্টাসের ছয় কর্মকর্তার বিপক্ষে। কিন্তু পুলিশ তদন্ত করতে গিয়ে পেয়েছে প্রক্রিয়াটির সঙ্গে পুরো ক্লাবই জড়িত।

অর্থাৎ ক্লাবের সভাপতি আন্দ্রেয়া আগনেল্লি এবং সহসভাপতি ও ক্লাবটির কিংবদন্তি ফুটবলার পাভেল নেদভেদও অভিযুক্ত আর্থিক অনিয়মের দায়ে অভিযুক্ত এখন। তদন্তের আওতায় আছেন ক্লাবটির সাবেক ক্রীড়া পরিচালক ফাবিও পাত্রিসিও-ও।
তথ্যসূত্র: রয়টার্স, ইএসপিএন
0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 17:08

নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে জাতির পিতার প্রতিকৃতি কেন নয়: হাইকোর্ট

নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে জাতির পিতার প্রতিকৃতি কেন নয়: হাইকোর্ট
অনতিবিলম্বে সব ধরনের নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে জতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি যুক্ত করার পদক্ষেপ নিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না- তা জানতে চেয়েছেন উচ্চ আদালত।

সেই সঙ্গে এসব নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে জতির পিতার প্রতিকৃতি সন্নিবেশ করতে বিবাদীদের নিষ্ক্রিয়তা কেন ‘আইনগত কর্তৃত্ববহির্ভূত ও বেআইনি’ ঘোষণা করা হবে না, তাও জানতে চাওয়া হয়েছে রুলে।

নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে জতির পিতার প্রতিকৃতি সন্নিবেশের নির্দেশনা চেয়ে করা এক রিটের শুনানি করে বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চ রোববার এ রুল দেন।

জন প্রশাসন সচিব, অর্থ মন্ত্রণালয়ের আভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সচিব, আইন সচিব, পরিকল্পনা সচিব, মন্ত্রীপরিষদ সচিব, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের সচিব, সংসদ সচিবালয়ের সচিব, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রচার ও প্রকাশনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও রংপুরের জেলা প্রশাসককে চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী আতাউল্লাহ নুরুল কবীর নয়ন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায়।

রিট আবেদনে সব ধরনের নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে জাতির পিতার প্রতিকৃতি সন্নিবেশ করার নির্দেশনা চাওয়া হয়েছিল। তিন দিন শুনানির পর রোববার আদালত রুল দিলেন।
0 Share Comment
National/International News Group
28 November 2021, 17:07

অভিনেত্রী আলিয়া ভাটের হৃদয়স্পর্শী নোট সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল

অভিনেত্রী আলিয়া ভাটের হৃদয়স্পর্শী নোট সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল
বলিউড সেনসেশন আলিয়া ভাটের বিয়ে নিয়ে হইচই চলছে। শোনা যাচ্ছে, দীর্ঘদিনের প্রেমিক রণবীর সিংয়ের সঙ্গে ডিসেম্বরেই গাটছাড়া বাঁধতে চলেছেন এ নায়িকা। বিয়ে নিয়ে হইচইয়ের মধ্যে আলিয়ার একটি পোস্ট সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে গেছে।

যেখানে তিনি লিখেছেন— আমি এমন পৃথিবী কিংবা জীবনের সঙ্গে পরিচিত নই, যেখানে তোমার ভালোবাসা নেই। অনেকে ধারণা করেছিলেন— প্রেমিক রণবীরকে নিয়ে এমনটি লিখেছেন বলিউড নায়িকা। কিন্তু পুরো টুইটপড়ার পর সেই ভুল ভাঙে।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়েছে, আলিয়া ভাটের বোন শাহীন ভাটের জন্মদিন আজ। এই দিনে বোনের সঙ্গে একটি সাদাকালো ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেছেন আলিয়া। তাকে নিয়ে একটি হৃদয়স্পর্শী নোট লেখেন আলিয়া।

তিনি লিখেছেন— শুভ জন্মদিন প্রিয়। আমার সুখের ঠিকানা। আর নিরাপদ আবাস। আমার মা, সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ বন্ধু সবার থেকে বেশি প্রিয় তুমি। আমার জীবনের তোমার উপস্থিতির প্রয়োজনীয়তা ব্যাখ্যা করার মতো কোনো শব্দ নেই ডিকশনারিতে। তোমায় ছাড়া কোনো পৃথিবী কিংবা জীবনের সঙ্গে আমি পরিচিত নই!! সব ভালোবাসা ও আনন্দ তোমায় ঘিরে আবর্তিত হোক। আমি তোমাকে অনেক ভালোবাসি।

পোস্টের প্রতিক্রিয়াও জানিয়েছেন শাহীন ভাট। তিনি পোস্টের নিচে লিখেছেন— ‘ওয়াও’।
0 Share Comment
আরও খুজুন। এজন্য নিচের বক্সে লিখে এন্টার চাপুন অথবা সার্চ আইকনে ক্লিক করুন। Find out more. To do this, type in the box below and press Enter or click on the search icon.
$
$

Image Product Price
Buy GPS TRACKER MINI A8 1 230.00 BDT each 14 items in stock
+
Add to cart
Buy Electric Paint Zoom 2 850.00 BDT each
+
Add to cart
Buy Double Microwave Oven Stand Shelf 1 350.00 BDT each 7 items in stock
+
Add to cart
Buy Electric Hot Water tap 1 990.00 BDT each
+
Add to cart
Buy Hot Water Tap with Hand 2 620.00 BDT each
+
Add to cart
M10 Bluetooth Earbuds 1 000.00 BDT each
+
Add to cart
Buy Solar motion Light 710.00 BDT each
+
Add to cart
2 in 1 hd night vison sunglass Free
+
Add to cart
Buy Hot Water Shower 1 200.00 BDT each
+
Add to cart
Buy Electric Popcorn Maker 2 000.00 BDT each
+
Add to cart
Stainless Steel Kitchen 400.00 BDT each
+
Add to cart
Beauty Massager 5 in 1 600.00 BDT each
+
Add to cart
Buy 6 in 1 sunglasses 1 100.00 BDT each 9 items in stock
+
Add to cart
Buy Rechargeable Autometic Water Dispenser Pump 750.00 BDT each
+
Add to cart
Blackheads Remover 1 000.00 BDT each
+
Add to cart
Buy spinning broom cleaner machine 1 000.00 BDT each 8 items in stock
+
Add to cart
Buy Blackheads Remover 1 100.00 BDT each
+
Add to cart
Buy Baby Bouncer Chair 1 350.00 BDT each
+
Add to cart
Buy Furniture Easy Moving 1 500.00 BDT each
+
Add to cart
Buy Rechargeable Full HD Night Vision Camrea 1 000.00 BDT each 11 items in stock
+
Add to cart
Infrared Body Massager 1 000.00 BDT each
+
Add to cart
Bubble Cleaner 600.00 BDT each
+
Add to cart
Capsule Cutter 1 100.00 BDT each 20 items in stock
+
Add to cart
Buy Electric Chula,Osaka 1 550.00 BDT each
+
Add to cart